আজিজুল ইসলাম বারী,লালমনিরহাট থেকে: শতকরা ১০ভাগ নিম্ন ও উর্দ্ধ দর প্রথার মাধ্যমে টার্নওভারের ভিত্তিতে পূর্ত কাজের ঠিকাদার নিয়োগ বাতিলসহ ৩ কোটি টাকা পর্যন্ত সীমিত দরপত্রের লটারী প্রথা বাস্তবায়নের দাবীতে লালমনিরহাটে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। লালমনিরহাট জেলা ঠিকাদার সমিতির আয়োজনে বুধবার দুপুরে জেলার প্রানকেন্দ্র মিশনমোড় গোল চত্বরে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন শেষে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরাবর স্বারকলিপি পেশ ও সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে স্বারকলিপির অনুলিপি প্রেরণ করা হয়। মানববন্ধনে লালমনিরহাট জেলার পূর্ত কাজের ঠিকাদারবৃন্দরা তাদের বক্তব্যে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতিপূর্বে ঠিকাদারী কাজে স্বচ্ছতা আনার জন্য নির্দেশ প্রদান করেন। পরবর্তীতে সেই নির্দেশনা মোতাবেক সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ২ কোটি টাকা মূল্যমান পর্যন্ত এল.টি.এম পদ্ধতিসহ ঠিকাদার নির্বাচনে লটারী পদ্ধতি চালু করেন। কিন্তু সেখানে ঠিকাদারদের পূর্ব অভিজ্ঞতা ব্যতিরেকে শতকরা ৫ ভাগ নিম্ন দর বা উর্দ্ধ দর পর্যন্ত নির্ধারন করা হয়।

যার ফলে পূর্তকাজের ঠিকাদারগণ স্বতঃস্ফুর্তভাবে শত শত দরপত্র ক্রয় করতো। এতে করে সরকারের বিপুল পরিমান রাজস্ব আয় হতো। ওই সময় সকল ঠিকাদারদের দর একই হওয়ায় দরপত্র আহবানকারী কর্তৃপক্ষ লটারীর মাধ্যমে ঠিকাদার নির্বাচন করতেন। যা সকল ঠিকাদারগণ সেই সিদ্ধান্ত মেনে নিতেন। বক্তারা আরও বলেন, সরকারের যাবতীয় আর্থসামাজিক উন্নয়ন কর্মকান্ডে ঠিকাদারগণ উন্নয় সহযোগী হিসেবে কাজ করে থাকেন। কিন্তু ২০১৬-২০১৭গত অর্থ বৎসর থেকে নতুন নিয়ম চালু করা হয়। ওই নিয়মে পূর্ত কাজের ঠিকাদারগণের যাহার পূর্ব অভিজ্ঞতা যত বেশী তারা দরপত্রে অংশগ্রহন করলেই শুধু তাকেই কাজ দেয়া হচ্ছে।

এতেকরে সামান্য কিছু ঠিকাদার এই সুবিধা ভোগ করছেন। ওই নীতিমালার কারনে অন্যান্য ঠিকাদাররা দরপত্রে অংশগ্রহন করতে পারছেন না। যার ফলে বঞ্চিত ঠিকাদারগণ তাদের লাইসেন্স নবায়নে আগ্রহ হারানোয় সরকার বিপুল পরিমান রাজস্ব থেকেও বঞ্চিত হচ্ছে।

অপরদিকে বর্তমান নিয়মে টেন্ডারে অংশগ্রহন করতে না পারায় শত শত ঠিকাদার হতাশাগ্রস্থ ও বেকার হয়ে পড়ায় মানবেতর জীবন যাপন করছেন।

বক্তারা পূর্ব ঘোষিত এল.টি.এম পদ্ধতিতে ২ কোটি টাকার স্থলে ৩ কোটি টাকার কাজের মুলমান পর্যন্ত পূর্ব কোন অভিজ্ঞতা ছাড়াই টেন্ডারে অংশগ্রহণের সুযোগ করে দেয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট আবেদন জানান। সেই সাথে বিপুল পরিমান ঠিকাদার জনগোষ্ঠির জীবিকারা স্বার্থে শতকরা ৫ভাগ উর্দ্ধদর বা নিম্নদর দাখিলকৃত দরপত্র লটারীর মাধ্যমে ঠিকাদার নির্বাচন প্রথা চালু ও শতকরা ১০ভাগ উর্দ্ধদর বা নিম্নদরে নতুন নীতিমালায় যার যত বেশী টার্নওভার সেই ব্যক্তি প্রতিষ্ঠান কাজ পাবেন এই নিয়ম বাতিল করার সবিনয় অনুরোধ জানান।

লালমনিরহাট জেলা ঠিকাদার সমিতির আহবায়ক একেএম কামরুল হাসান বকুলের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে অন্যন্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বিশিষ্ট ঠিকাদার মোঃ মোফাজ্জল হোসেন, ঠিকাদার মোঃ রেজাউল হক পাটোয়ারী, ঠিকাদার এনামুল হক, ঠিকাদার কাজী নজরুল ইসলাম কপন, ঠিকাদার বদরুজ্জামান প্লাবন প্রমূখ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য