আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা থেকেঃ গাইবান্ধার সাঘাটায় ঝড়ে পড়া শিক্ষার্থীদের (প্রি-ভোকেশনাল দক্ষতা উন্নয়নে) প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের রিচিং আউট-অব-স্কুল চিলড্রেন (রস্ক) প্রকল্পের আওতায় তিনমাস ব্যাপী প্রশিক্ষণ শেষে ১’শ প্রশিক্ষণার্থীদের হাতে সার্টিফিকেট তুলে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া একই সঙ্গে সাঘাটার যুগিপাড়া গ্রামে আরও একটি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের উদ্ধোধন করা হয়।

মঙ্গলবার দুপুরে সাঘাটা উপজেলার বোনারপাড়ায় প্রশিক্ষণার্থীদের হাতে সার্টিফিকেট তুলে দেন রিচিং আউট-অব-স্কুল চিলড্রেন (রস্ক) দ্বিতীয় পর্যায় প্রকল্প উপ-পরিচালক (উপ-সচিব) শাহাদাত হোসেন। এসময় সাঘাটা উপজেলা নির্বাহী অফিসার উজ্জল কুমার ঘোষ, সিপিডি’র নির্বাহী পরিচালক মোসলেমা বারী, সাঘাটা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আজিজুল ইসলাম, পিভিটি প্রোগ্রাম সুপারভাইজার রফিকুল ইসলাম, পিসি ফরহাদ হোসেন ও সিপিডি ফোকাল পার্সন রুমানা কাদের উপস্থিত ছিলেন।

গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার ঝড়ে পড়া শিক্ষার্থী (১৫ থেকে ২৩ বছর) এমন ১০০ শিক্ষার্থী মোবাইল ফোন সার্ভিসিং, ইলেট্রিক হাউজ ওয়ারিং, গার্মেন্টস মেশিন অপারেশন ও মোটর মেকানিক্যালে চারটি ট্রেডে তিন মাস প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে।

সমাজের পিছিয়ে পড়া ও ঝড়ে পড়া শিক্ষার্থীদের আত্মনির্ভরশীল করতে বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের রিচিং আউট-অব-স্কুল চিলড্রেন (রস্ক) দ্বিতীয় পর্যায় প্রকল্পের আওতায় দ্য সেভ চিলড্রেনের কারিগরি সহযোগিতায় কমিউনিটি পার্টিসিপেশন ডেভেলপমেন্ট (সিপিডি) প্রশিক্ষণ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে।

কমিউনিটি পার্টিসিপেশন ডেভেলপমেন্ট সিপিডি’র প্রজেক্ট কো-অর্ডিনেটর (পিসি) মো. সিরাজ উদ্দিন বলেন, ‘দক্ষ ট্রেইনার দিয়ে চারটি ট্রেডে ১০০ জনকে তিন মাস প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। প্রশিক্ষণে প্রত্যেকে টিফিন ভাতা ও যাতায়াতসহ ৮ হাজার টাকা পান। ইতোমধ্যে প্রশিক্ষণ নিয়ে ৬০ জন দেশের বিভিন্ন কোম্পানীতে চাকুরী করছেন। এছাড়া যুগিপাড়ার কেন্দ্রেও ১০০ জনকে প্রশিক্ষণ দিয়ে বিভিন্ন কোম্পানি চাকুরীর সুযোগ করে দেওয়া হবে। তবে কেউ চাকুরী না করলেও প্রশিক্ষণ কাজে লাগিয়ে আত্মনির্ভরশীল হয়ে জীবিকা নির্বাহ করতে পারবে’।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য