স্বাধীনতার প্রশ্নে গত সপ্তাহে কাতালুনিয়ায় অনুষ্ঠিত গণভোটের বিপক্ষে বিক্ষোভের ডাক দিয়েছে অখণ্ড স্পেনের সমর্থকরা।

গণভোটের আগে বার্সেলোনায় হওয়া বিশাল বিশাল সমাবেশের মতই এবার মাদ্রিদ ও অন্যান্য শহরে সমাবেশের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে বলে খবর বিবিসির।

স্পেনের সরকার ও সাংবিধানিক আদালতকে উপেক্ষা ও কড়া পুলিশি বাধা অতিক্রম করে অনুষ্ঠিত গত রোববারের গণভোটে ৪৩ শতাংশ ভোটার তাদের রায় জানাতে পেরেছিল বলে দাবি কাতালুনিয়ার আঞ্চলিক সরকারের।

২৩ লাখ ভোটের ৯০ শতাংশ স্বাধীনতার পক্ষে পড়েছে বলে নির্বাচনী কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

ভোট রুখতে সর্বশক্তি প্রয়োগ করেছিল স্পেনের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। বিভিন্ন কেন্দ্র দখলে নিয়ে নির্বাচনী সামগ্রী জব্দ করেছিল তারা। এ নিয়ে ভোট দিতে ইচ্ছুক জনতার সঙ্গে সংঘর্ষও হয়েছে তাদের।

সংঘর্ষে ৯ শতাধিক বেসামরিক নাগরিক আহত হয়েছে বলে দাবি কাতালান আঞ্চলিক সরকারের। ভোট থামাতে গিয়ে ৩৩ জন পুলিশ কর্মকর্তাও আহত হয়েছেন বলে মাদ্রিদ সরকার জানিয়েছে।

সংঘর্ষে বেসামরিক নাগরিক আহত হওয়ার কথা স্বীকার করে ক্ষমা চেয়েছেন স্পেনের কাতালুনিয়া প্রতিনিধি এনরিক মিলো।

শুক্রবার দেওয়া প্রতিক্রিয়ায় তিনি জানান, কাতালান আঞ্চলিক সরকারের ‘অবৈধ গণভোট’ ঠেকাতে পুলিশ হস্তক্ষেপ করায় সহিংসতার ঘটনা ঘটে।

“কিছুই করার ছিল না, তবু আমি অনুতপ্ত এবং হস্তক্ষেপ করা কর্মকর্তাদের হয়ে ক্ষমা চাইছি,” বলেন তিনি।

মন্ত্রীসভার বৈঠকের পর স্পেন সরকারের মুখপাত্র ইনজো মেনদেজ দে ভিগোও রোববার কাতালুনিয়ার ‘জনগণের ভোগান্তিতে’ সরকারের অনুতপ্ত হওয়ার কথা জানিয়েছেন।

সেদিনের সহিংসতায় আহতের সংখ্যা নিয়ে সন্দেহের কথা জানিয়ে মেনদেজ বলেন, তার সরকার কাতালুনিয়ায় নতুন নির্বাচন অনুষ্ঠানের চিন্তা করছে, যা বিতর্কিত গণভোটের ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে সহায়তা করবে।

সোমবার পার্লামেন্টের নতুন অধিবেশন ডেকেছে কাতালুনিয়ার আঞ্চলিক সরকার। ধারণা করা হচ্ছে, গণভোটে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়ায় পার্লামেন্টের এই অধিবেশনেই কাতালুনিয়ার স্বাধীনতার ঘোষণা দেওয়া হবে।

মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬টায় স্বায়ত্তশাসিত কাতালান অঞ্চলের প্রেসিডেন্ট কার্লেস পুজদেমন পার্লামেন্টে ভাষণ দেওয়ার পরিকল্পনা করেছেন বলে অঞ্চলটির পার্লামেন্টের স্পিকার জানিয়েছেন।

স্পেনের সাংবিধানিক আদালত কাতালুনিয়ার পার্লামেন্টের এই অধিবেশন স্থগিত ঘোষণা করলেও নির্ধারিত সময়েই অধিবেশন শুরু হবে এবং সেখানে গণভোটের রায় নিয়ে আলোচনা হবে বলে কাতালান সরকারের পররাষ্ট্র বিষয়ক বিভাগের প্রধান রাউল রোমেভা বিবিসিকে জানিয়েছেন।

“পার্লামেন্ট বসবে, সেখানে আলোচনা হবে; (স্বাধীনতা) ঠেকাতে স্পেনের সরকার যে যে পদক্ষেপ নিবে, তার প্রত্যেকটা কেবল অর্থহীনই হবে না, দেখবে যথার্থ বিপরীত প্রতিক্রিয়া,” বলেন তিনি।

কাতালুনিয়া ও মাদ্রিদের মধ্যে চলমান টানাপোড়েনের কারণে এরই মধ্যে বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান তাদের সদরদপ্তর ও নিবন্ধিত অফিস বার্সেলোনা থেকে সরিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে বিবিসি জানিয়েছে।

রাষ্ট্রদ্রোহীতার অভিযোগে মাদ্রিদের জাতীয় অপরাধ আদালতে কাতালান পুলিশপ্রধান জোসেপ লুইজ ত্রাপেরোর বিচার শুরু হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য