স্পেনের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল কাতালুনিয়া কয়েকদিনের মধ্যেই স্বাধীনতা ঘোষণা করে স্পেন থেকে আলাদা হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন অঞ্চলটির প্রেসিডেন্ট কার্লেস পুজদেমন।

কাতালুনিয়ার স্বাধীনতার প্রশ্নে রোববারের গণভোটের পর দেওয়া প্রথম সাক্ষাৎকারে মঙ্গলবার বিবিসিকে একথা বলেন তিনি।

‘চলতি সপ্তাহের শেষ দিকে কিংবা আগামী সপ্তাহের প্রথমদিকে’ তার সরকার এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিবে বলে জানিয়েছেন পুজদেমন।

এদিকে একইদিন টেলিভিশনে সম্প্রচারিত জাতির উদ্দেশ্যে দেওয়া এক ভাষণে স্পেনের রাজা ষষ্ঠ ফেলিপে বলেছেন, গণভোটের আয়োজকরা তাদের ‘আইনের বাইরে’ নিয়ে গেছেন।

স্পেনের পরিস্থিতিকে তিনি ‘অত্যন্ত গুরুতর’ বলে মন্তব্য করে ঐক্যের আহ্বান জানিয়েছেন।

গণভোটের দিন স্পেনের পুলিশের সহিংসতার প্রতিবাদে মঙ্গলবার কাতালুনিয়াজুড়ে লাখ লাখ মানুষ প্রতিবাদ ধর্মঘট পালন করছে। ভোটের দিন পুলিশের অ্যাকশনে প্রায় ৯০০ কাতালান আহত হয়েছেন বলে গণমাধ্যমগুলোর খবর।

অপরদিকে একই দিন ৩৩ পুলিশ কর্মকর্তাও আহত হয়েছেন বলে স্থানীয় চিকিৎসা কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

স্বাধীনতার প্রক্রিয়া শুরু করলে স্পেনের সরকার যদি হস্তক্ষেপ করে এবং কাতালুনিয়া সরকারের নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করে তখন কী করবেন, সাক্ষাৎকারে এমন প্রশ্নের জবাবে পুজদেমন বলেন, “এটি ভুল হবে এবং তা সবকিছু পরিবর্তন করে দিবে।”

বর্তমানে মাদ্রিদের সরকারের সঙ্গে তার নিয়ন্ত্রিত প্রশাসনের কোনো ধরনের যোগাযোগ নেই বলে জানিয়েছেন তিনি।

সোমবার এক বিবৃতিতে ইউরোপীয় কমিশন কাতালুনিয়ার ঘটনাগুলোকে ‘স্পেনের অভ্যন্তরীণ বিষয়’ বলে মন্তব্য করেছে। ইউরোপীয় কমিশনের এই মন্তবের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করেছেন পুজদেমন।

স্পেনের রাজার ভাষণের কিছুক্ষণ আগে তিনি এসব কথা বলেন।

ভাষণে রাজা বলেন, গণভোট আয়োজনকারী কাতালান নেতারা ‘রাষ্ট্রের ক্ষমতার প্রতি অশ্রদ্ধা’ দেখিয়েছেন।

“তারা আইনের শাসনের গণতান্ত্রিক নীতি ভঙ্গ করেছেন। এখন কাতালান সমাজে ভাঙন ধরেছে।”

গণভোটের কারণে সম্পদশালী উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় অঞ্চলের এবং পুরো স্পেনের অর্থনীতি ঝুঁকির মুখে পড়তে পারে বলে সতর্ক করেন। স্পেন ‘এই কঠিন সময় কাটিয়ে উঠবে’ বলে জোর দিয়ে বলেন তিনি।

স্পেনের কেন্দ্রীয় সরকার কাতালুনিয়ার গণভোটকে অবৈধ বলে বর্ণনা করেছে।

রাজার ভাষণ শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই বার্সেলোনার একটি বারে উপস্থিত কাতালানরা টেবিলে চাপড় মেরে নিজেদের বিরক্তি প্রকাশ করেন, তারপর রাজা কী নিয়ে কথা বলেননি তাই নিয়ে আলোচনা শুরু করেন।

তাদের মন্তব্য অনুযায়ী রাজা রোববারের ভোটারদের ওপর পুলিশের পিটুনি নিয়ে কোনো কথা বলেননি, স্পেনের সরকারের সঙ্গে কাতালান সরকারের জরুরি সংলাপ শুরু করার আবেদন জানাননি এবং কাতালানদের স্বাধীনতার আকাঙ্ক্ষাকে আমলে নেননি, এমনকি কাতালানদের বিষয়ে একটি শব্দও উচ্চারণ করেননি।

এর বদলে তিনি স্পেনের সরকারের অবস্থান তুলে ধরেছেন এবং দৃঢ়ভাবে গণভোটের বিরোধীতার বিষয়টিই প্রতিধ্বনিত করেছেন।

স্পেনীয় জবানীতে তিনি ‘গণতান্ত্রিক সহাবস্থানের’ কথা বলেছেন শুধু।

দুই পক্ষকে সংলাপের টেবিলে বসানোর জন্য চাপ দেওয়ার একটি সুযোগ রাজা হারিয়েছেন বলে মন্তব্য আরেক কাতালানের।

রাজার এই ভাষণ ‘বিরাজমান পরিস্থিতিতে কোনো ধরনের সহায়তা করবে না’ বলে মন্তব্য করেছেন আরেকজন।

গণভোটে সহিংসতার প্রতিবাদে মঙ্গলবার কাতালুনিয়াজুড়ে ব্যাপক প্রতিবাদ সমাবেশ হয়। শুধু বার্সেলোনাতেই সাত লাখ মানুষ রাস্তায় নেমে আসে বলে জানিয়েছে শহর পুলিশ, তবে মাদ্রিদের কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে এই তথ্য নিশ্চিত করা হয়নি।

বার্সেলোনা বন্দরের সব কাজ বন্ধ ছিল বলে জানিয়েছে ট্রেড ইউনিয়নের একটি সূত্র।

বার্সেলোনার বিখ্যাত পাইকারী মার্কেট মার্কাবার্না, অন্যতম পর্যটন আকর্ষণ সাগ্রাদা ফ্যামিলিয়া গির্জা বন্ধ ছিল। স্কুল, বিশ্ববিদ্যালয় ও হাসপাতালগুলোও বন্ধ ছিল বা নূন্যতম কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছে। তবে এল প্রাত বিমানবন্দর ও শহরের ট্যাক্সি সার্ভিসের কার্যক্রম স্বাভাবিক ছিল।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য