ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য আসামে নতুন করে দেখা দেওয়া বন্যায় পাঁচটি জেলা ডুবে গেছে।

এতে ওই পাঁচটি জেলার ৭৮ হাজারেরও বেশি মানুষ বন্যাক্রান্ত হয়েছে বলে রোববার জানিয়েছেন এক রাজ্য কর্মকর্তা, খবর এনডিটিভির।

চলতি বছর আসামে বেশ কয়েকবার বন্যা হওয়ার পর নতুন করে শুরু হওয়া এ বন্যায় ওই পাঁচটি জেলার ৩০৬ একর ভূমি ডুবে গেছে এবং প্রায় ১৬ হাজার প্রাণীও বন্যার কবলে পড়েছে বলে আসামের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের ওই কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

প্রতিবেশী রাজ্য অরুণাচল প্রদেশ ও মেঘালয়সহ পুরো আসামজুড়ে বৃষ্টিপাতে রাজ্যের লক্ষীপুর, দক্ষিণ সালমারা, গোয়ালপাড়া, হোজাই এবং কারবি আংলোং নতুন করে বন্যার কবলে পড়েছে। এসব জেলার মধ্যে আসাম-মেঘালয়ের সীমান্তবর্তী গোয়ালপাড়ার পরিস্থিতি সবেচেয়ে নাজুক বলে খবর হয়েছে।

গোয়ালপাড়া জেলার ৪১ হাজার মানুষ বন্যাক্রান্ত হয়েছে; এর পরই আছে দক্ষিণ সালমারা, এখানে বন্যাক্রান্তের সংখ্যা ২৯ হাজার।

ভারতের কেন্দ্রীয় পানি কমিশনের বুলেটিনে গোয়ালঘাটের নুমালিগড় এলাকায় ধানসিড়ি নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে বইছে বলে জানানো হয়েছে।

এতে আরো বলা হয়েছে, বন্যাক্রান্ত জেলাগুলো কর্মকর্তারা ১৮টি ত্রাণশিবির স্থাপন করেছেন যেখানে নয় হাজার ৯৯৪ জন বন্যাক্রান্ত আশ্রয় নিয়েছেন।

গোয়ালপাড়া থেকে রাজ্যের ডিজাস্টার রেসপন্স ফোর্স (এসডিআরএফ) ৩০ জনকে উদ্ধার করেছে বলে জানিয়েছেন ওই কর্মকর্তা। বন্যায় ওই পাঁচটি জেলার রাস্তা ও কালভার্ট ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

গত মাসে আসামে তৃতীয়বারের মতো দেখা দেওয়া বন্যায় ৭৬ জনের মৃত্যু হয়। এদের নিয়ে চলতি বছরের বন্যায় আসামে মোট ১৬০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে রাজ্যের রাজধানী গুয়াহাটিতে আটজনের মৃত্যু হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য