সন্দেহের কারণে রেজিয়া বেগম (২৮) পাষন্ড ভাগিনা ফরিদুল ইসলাম লিটনের নির্মম অত্যাচারে বর্তমানে কাউনিয়া মেডিকেলে মৃত্যু যন্ত্রনায় কাতরাচ্ছে।

লিখিত অভিযোগে জানাগেছে কাউনিয়া উপজেলার শহীদবাগ খোর্দ্দভুতছাড়া গ্রামের জামাল মন্ডলের মেয়ে রেজিয়র সাথে লালমনিরহাট সদর উপজেলার রাজপুর ইউনিয়ানে চিনাতুলি খলাইঘাট গ্রামের ফজল হকের ছেলে মোস্তফা কামাল এর সাথে প্রায় ১৮ বছর আগে বিয়ে হয়। বিয়ের সময় অনেক স্বপ্ন দেখেছিল রেজিয়া, এরইমধ্যে তার কোল জুরে ২টি সন্তান জন্ম নেয়।

এর কিছু দিন পর থেকে মোস্তফা কামাল সংসার চালানোর দাগিদে ঢাকা সহ বিভিন্ন জায়গায় কাজে যায়। এরই ফাকে মা মজিরন, বোন ফরিদা তাদের বাড়িতে কোন লোক গেলেই রেজিয়াকে সন্দেহ করতে থাকে। এ নিয়ে রেজিয়ার সাথে ফরিদার কথাকাটির একপর্যায়ে ফরিদার ছেলে লিটন, দেবর মোস্তাকিন, ননদ ফরিদা ও শাশুড়ি মজিরন তাকে লাঠি দিয়ে সিজার করা কাঁটা জায়গাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাতাড়ি মারডাং করে গুরুতর আহত করে।

পরে আশপাশের লোকজন রেজিয়ার বাবাকে খবর দিলে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে কাউনিয়া মেডিকেলে ভর্তি করায়। ডাঃ গোলাম রাব্বানী জানান রেজিয়ার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন পাওয়াগেছে। তার সুস্থ হতে বেশ কিছুদিন সময় লাগবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য