দিনাজপুরের খানসামা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ( ইউ এন ও) হলেন কলেজ পড়ুয়া তাহরিমা আক্তার জিমি !

২৭ সেপ্টেম্বর বুধবার দিনব্যাপি সে ইউ এন ও’র ভূমিকা পালন করে।ঐ দিন সকালে জিমি ইউ এন ও মোঃ সাজেবুর রহমানের কাছ থেকে দায়িত্ব বুঝে নিয়ে প্রথমে সহকর্মীদের সাথে পরিচিত হন ও মতবিনিময় করেন। পরে জিমি উপজেলার একটি স্কুল পরিদর্শন, উপজেলার গণশুনানিতে ও খাদ্যে ভেজাল বিরোধী কার্যক্রমে অংশ নেন।

উপজেলা পর্যায়ে সরকারি এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালনের মধ্য দিয়ে জিমির মধ্যে বড় হবার ও নেতৃত্ব দেবার প্রেরণা পাবে বলে প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ গার্লস টেক ওভার কর্মসূচির অধীনে তাকে ইউ এন ও’র ভূমিকা পালনে উদ্বুদ্ধ করে।

এ বিষয়ে জিমি বলেন “এক দিনের জন্য হলেও খানসামার ইউএনও হতে পেরে আমি ভীষণ খুশি। এখন আমি ভবিষ্যতে এমন একটি বড় পদে অসিন হবার স্বপ্ন দেখছি। ভালভাবে পড়ালেখা করে আমি জীবনে অনেক বড় হতে চাই। খানসামা উপজেলার গোয়াল ডিহি গ্রামের জহুরা বেগম ও জয়নুল আবেদিন দম্পতির জিমি। সে বর্তমানে সে উচ্চমাধ্যমিক প্রথম বর্ষের ছাত্রী।

খানসামা যুব ফোরামের সদস্য জিমি ২০১১ সাল থেকে নিজ এলাকায় শিশু বিয়ে প্রতিরোধ, ঝরে পড়া শিশুদের স্কুলমুখী করা, জন্ম নিবন্ধনসহ বিভিন্ন সচেতনতামূলক কর্মকান্ড সক্রিয়ভাবে অংশ নিয়ে আসছে।

উল্লেখ্য ১১ অক্টোবর আন্তর্জাতিক কন্যা দিবস উপলক্ষে প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল ২০১৬ সাল থেকে গার্লস টেক ওভার কর্মসূচির আয়োজন করে আসছে। এ কর্মসূচির মাধ্যমে একজন কিশোরী বা যুব নারীকে নেতৃত্ব প্রদানকারীর ভূমিকা পালন করতে সহায়তা করা হয় যাতে তার মধ্যে বড় হবার ,ভাল কিছু করার স্বপ্ন তৈরি হয় এবং আত্ম বিশ্বাস বাড়ে।

এ বছর গার্লস টেকওভার কর্মসূচির অধিনে প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ রংপুর বিভাগের দিনাজপুর,নীলফামারী ,লালমনিরহাট ও রংপুরের জেলা পর্যায়ের সরাকারি কর্মকর্তা,বিভিন্ন উপজেলার ইউ এন ও, ইউ পি চেয়ারম্যান ও নিজ সংস্থার প্রধানের দায়িত্ব পালনে সহায়তা করবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য