গত কয়েকদিনে আফগানিস্তানের দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রদেশ উরুজগানে বহু ক্লিনিক বন্ধ করে দিয়েছে তালেবান।

আফগানিস্তানের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, প্রদেশটির অধিকাংশ এলাকার নিয়ন্ত্রণ নেওয়া বিদ্রোহী গোষ্ঠীটি তাদের যোদ্ধাদের জন্য বিশেষ চিকিৎসার দাবি জানিয়ে ক্লিনিকগুলো বন্ধ করে দিয়েছে।

দোস্ত মোহাম্মদ নায়েব নামে প্রাদেশিক গভর্নরের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, কর্তৃপক্ষ স্থানীয় মুরুব্বীদের সঙ্গে কথা বলে তাদের ক্লিনিকগুলো খুলে দেওয়ার অনুমতি দিতে তালেবানদের সঙ্গে মধ্যস্থতা করার প্রস্তাব দিয়েছেন।

“হাসপাতালগুলো রাজনীতির জায়গা না। আমাদের চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের ফেরার অনুমতি দিতে তালেবানকে বলেছি আমরা,” বলেন তিনি।

নায়েব জানান, উরুজগানের ৪৯টি ক্লিনিকের মধ্যে ৪৬টি বন্ধ করে দিয়েছে তালেবান, প্রাদেশিক হাসপাতালসহ মাত্র তিনটি ক্লিনিক এখন চালু আছে।

তালেবান তাদের যোদ্ধাদের জন্য বিশেষ চিকিৎসা সুবিধার দাবি জানাচ্ছে বলে জানিয়েছিন তিনি।

“সমস্যাটির ফয়সালা করার জন্য ওইসব এলাকার মুরুব্বিদের তালেবানের সঙ্গে কথা বলতে বলেছি আমরা,” বলেন তিনি।

উরুজগান তালেবানের প্রাণকেন্দ্র কান্দাহার ও হেলমান্দ প্রদেশের লাগোয়া। গত কয়েক বছর ধরে প্রদেশটি বিদ্রোহীদের প্রবল চাপের মুখে আছে। গত বছর তারা সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য প্রাদেশিক রাজধানী তারিন কোটের দখল নিয়ে নিয়েছিল।

তাদের যোদ্ধারা বেশ কয়েক ডজন চিকিৎসা কেন্দ্র বন্ধ করে দিয়েছে বলে স্বীকার করেছেন তালেবানের এক মুখপাত্র। মানসম্পন্ন সেবা না দেওয়ায় সেগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করেছেন তিনি।

বর্তমানে আফগানিস্তানের কোনো বড় ধরনের প্রাদেশিক শহর তালেবানের নিয়ন্ত্রণে না থাকলেও দেশটির প্রায় ৪০ শতাংশ এলাকা গোষ্ঠীটির নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য