দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুর শহরের পাটুয়াপাড়া এলাকার মোঃ নুরুন্নবীর স্ত্রী মোছাঃ আসমা আক্তার ইতি প্রায় কয়েক বছর ধরে সংসারে এক তরফা ক্রোন্দল করে চলেছে। এরই ধারাবাহিকতায় ২২ সেপ্টেম্বর শুক্রবার মোছাঃ আসমা আক্তার ইতি বাড়ীর সকল আসবাবপত্র ভাংচুর করে নগদ অর্থ ও স্বর্ণ অলংকার নিয়ে বাড়ী ছেড়ে অন্যত্রে পালিয়ে যায়।

ঘটনা সূত্রে জানা যায়, দিনাজপুর শহরের পাটুয়াপাড়া এলাকার মোঃ মকসেদ আলীর পুত্র মোঃ নুরুন নবীর সাথে খানসামা উপজেলার পাকেরহাট পাউরাপাড়া গ্রামের হোমিও ডাক্তার আফজাল হোসেনের কন্যা মোছাঃ আসমা আক্তার ইতির সাথে প্রায় ১০ বছর পূর্বে বিবাহ বন্ধন হয়। বিয়ের পরপরই সংসারে প্রায় সময় খুটি-নাটি বিষয় নিয়ে উত্তেজনামূলক কার্যক্রম ভাংচুরসহ সংসারে ক্রোন্দল সৃষ্টি করত নুরুন নবীর স্ত্রী আসমা আক্তার ইতি।

এ সকল বিষয় নিয়ে প্রায় ১০ বছর ধরে থানাসহ বিভিন্ন স্থানে ক্রোন্দলের মিমাংসা হয়েছে। ইতিপূর্বে ২০০৯ সালে ২৪ ফেব্রুয়ারী সংসারে শান্তিপূর্ণভাবে শালিস-মিমাংসার মাধ্যমে নিষ্পত্তি করার প্রসঙ্গে ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ রবিউল ইসলাম রবি’র মাধ্যমে পৌরসভা মেয়র বরাবর একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়।

ওই দিনই দিনাজপুর কোতয়ালী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করা হয় উক্ত বিষয়কে কেন্দ্র করে। যার জিডি নং-১৪২৬ তাং-২৪/০২/২০০৯ইং। পরবর্তীতে আবারো একই বিষয় নিয়ে কোতয়ালী থানায় ২২/১১/২০১৫ইং একটি অভিযোগ করা হয় এবং সর্বশেষে ২২/০৯/২০১৭ইং বাড়ীর মালামাল ভাংচুরকে কেন্দ্র করে থানায় আরেকটি অভিযোগ করা হয়।

এই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ২২ সেপ্টেম্বর কোতয়ালী থানা থেকে ঘটনাস্থল পুলিশ পরিদর্শনে এলে নুরুন নবীর স্ত্রী পুলিশের সামনেই ৮ বছর বয়সী মেয়েকে নিয়ে অন্যত্রে পালিয়ে যায়। নুরুন নবীর পিতা মোঃ মোকসেদ আলী জানান, বাসা থেকে পালিয়ে যাওয়ার পর ঘরে আমার ছেলে গিয়ে দেখে ছেলের অটো কেনা বাবদ রক্ষিত ৮০ হাজার টাকা ও প্রায় আড়াই ভড়ি স্বর্ণ অলংকার নিয়ে পালিয়ে যায়। ঘরের ভাংচুররত প্রায় দেড় লক্ষ টাকার আসবাবপত্র নষ্ট হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য