আটলান্টিক মহাসাগড়ে সৃষ্ট পাঁচ মাত্রার ব্যাপক ধ্বংসাত্মক হারিকেন মারিয়ার আঘাতে ক্যারিবীয় অঞ্চলে অন্তত নয়জন নিহত হয়েছেন, পুরো পুয়ের্তো রিকো দ্বীপ বিদ্যুৎহীন হয়ে রয়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, ক্যারিবীয় দ্বীপ ডমিনিকায় হারিকেনটির তাণ্ডবে ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞের পাশাপাশি অন্তত সাতজন নিহত হয়েছেন, অপরদিকে ফ্রান্স-নিয়ন্ত্রিত গুয়াডেলোপ দ্বীপে আরো দুইজন নিহত হয়েছেন।

স্থানীয় কর্মকর্তাদের বরাতে বিবিসি জানিয়েছে, হারিকেন মারিয়ার কারণে ৩৫ লাখ বাসিন্দার পুয়ের্তো রিকো সম্পূর্ণ বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছে।

দ্বীপটির দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সংস্থার প্রধান আবনের গোমেজ জানান, পুয়ের্তো রিকোর ইলেকট্রিক পাওয়ার অথরিটির কোনো গ্রাহকের বাড়িতে বিদ্যুৎ নেই।

“যখন আমরা বাইরে যেতে পারবো, দেখবো আমাদের দ্বীপটি বিধ্বস্ত হয়ে গেছে। এটি এমন একটি ঝড় যা তার পথে পড়া সবকিছুকেই ধ্বংস করে ফেলে,” বলেছেন তিনি।

হারিকেনের তাণ্ডব থামার পর পুয়ের্তো রিকোর রাজধানী সান জুয়ানের যেসব বাসিন্দারা বাইরে বের হয়েছেন, তারা রাস্তাজুড়ে ধ্বংসাবশেষ, পড়ে যাওয়া বৈদ্যুতিক খুঁটি ও উপড়ে পড়া গাছ দেখতে পেয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল হারিকেন সেন্টার (এনএইচসি) জানিয়েছে, দ্বীপটির কয়েকটি অংশ ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়েছে।

পুয়ের্তো রিকোর গভর্নর রিকার্ডো রেজেলো জানিয়েছেন, উড়ন্ত ধ্বংসাবশেষের আঘাতে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

দ্বীপজুড়ে বুধবার সন্ধ্যা থেকে শনিবার সকাল পর্যন্ত কারফিউ জারি করেছেন তিনি।

পুয়ের্তো রিকোতে আঘাত হানার পর মারিয়া দুর্বল হয়ে পাঁচ মাত্রার হারিকেন থেকে দুই মাত্রার হারিকেনে পরিণত হয়েছে। দুই মাত্রার মারিয়ান এখন ডমিনিকান রিপাবলিকের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।

এনএইচসি জানিয়েছে, মারিয়ার গতিপথের নির্দেশনা অনুযায়ী বৃহস্পতিবার হারিকেনটি ডমিনিকান রিপাবলিকের উত্তর দিক দিয়ে পার হয়ে দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় বাহামার তুর্কস ও কাইকোস দ্বীপপুঞ্জের দিকে এগিয়ে যেতে পারে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য