দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলায় বিভিন্ন ইউনিয়নে গত আগষ্ট মাসের বন্যায় প্রায় ৮ হাজার ৭ শত ৫০ জন কৃষকের আমন ধানের জমির ধান সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে গেছে। উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় বন্যায় আমন ধান, কলা ও শাক সবজি সহ ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে।

কাহারোল উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে গত ১২ই আগষ্ট উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় পানি ঢুকে পড়ে। এতে করে উপজেলার সুন্দর পুর ইউ,পি, মুকুন্দপুর ইউ,পি ও রামচন্দ্রপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রাম প্লাবিত হয়। বন্যায় ১ হাজার ৯শ ৯৪ হেক্টর আমন ধান ও ৫ হেক্টর সবজি সম্পূর্ণ রুপে নষ্ট হয়ে গেছে। এতে করে প্রায় ২৫ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে ৮ হাজার ৭শত ৫০ জন কৃষকের উপজেলার কাজি কাটনা গ্রামের কৃষক মোশফুর বলেন অনেক খরচ করে ৬ বিঘা আমন ধান চাষ করে ছিলাম।

বন্যার পানিতে সব খাইয়ে গেছে। এখন আমন ধানের চারা ৩০ হাজার টাকা দিয়ে কিনে পুনরায় আমন ধান লাগাইয়াছি ধার দেনা করে। নতুন করে চাষ করতে অনেক টাকা খরচ হয়ে গেছে। উপজেলার ৬নং রামচন্দ্রপুর ইউ,পির চেয়ারম্যান মোঃ আতাউর রহমান বলেন, তার ইউনিয়নে অন্তত ৩ হাজার কৃষক বন্যার পরবর্তী সময়ে নতুন করে চাষাবাদ করতে আর্থিক ভাবে সংকটের মুখে পড়েছেন। অনেক কৃষককে ধার দেনা করে জমি চাষ করতে হয়েছে।

এ সময় সরকারি ভাবে ক্ষতি গ্রস্থ কৃষকদের কৃষি প্রনোদনা দেওয়া হলে তাদের অনেক উপকার হতো বোয়ালপাতমা গ্রামের রনজিত বলেন ২ বিঘা জমিতে ধান চাষ করেছিলাম সব নষ্ট হয়ে গেছে। সরকারিভাবে তিনি কোন সাহায্য পাননি তিনি ধার দেনা করে চাষাবাদ করছেন। নয়াবাদ গ্রামের হরিশ চন্দ্র রায় বলেন, নতুন করে সবজি চাষের জন্য জমি তৈরি করছেন। তিনি তার বাড়িতে টমোটোর চারা লাগিয়েছেন। এই চারা দিয়ে তিনি চাষ করবেন। ফলে তার খরচ কম হবে। রামচন্দ্রপুর ইউপির শাজাহান বলেন, বন্যার পানি জমিতে দীর্ঘ দিন স্থায়ী হওয়ায় তিনি সহ গ্রামের সব কৃষকের ধান ক্ষেত ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে তার জমানো টাকা থাকায় ফের চাষাবাদ করতে পারছেন। কিন্তু ক্ষতিগ্রস্ত অনেক কৃষক বিপাকে পরেছেন। এই সময় সরকারিভাবে সহযোগিতা কৃষকদের অনেক উপকারে আসবে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো: শামিম বলেন বন্যায় উপজেলার ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের তালিকা করা হচ্ছে। বন্যা পরবর্তী সময়ে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের ভুট্টা, সরিষাসহ সবজি চাষে উদ্বুদ্ধকরণের কার্যক্রম শুরু হয়েছে। কৃষকদের মাঝে কৃষি প্রনোদনা বিতরণের বিষয়ে তিনি বলেন, এই বিষয়ে তিনি সরকারিভাবে কোন নির্দেশনা পাননি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য