মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর থেকেঃ দিনাজপুর পৌরসভার মেয়র জাহাঙ্গীর আলমকে সাময়িক বরখাস্তের আদেশ তিন মাসের জন্য স্থগিত করেছে হাই কোর্ট। একইসঙ্গে মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালনে তাকে বাধা না দিতে নির্দেশ দিয়েছে আদালত। আদালত সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলমের সাময়িক বরখাস্তের আদেশ কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুলও দিয়েছে আদালত।

সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলমের পক্ষে এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি শেষে সোমবার (১৮ সেপ্টেম্বর) বিচারপতি এসএম এমদাদুল হক ও বিচারপতি ভীষ্মদেব চক্রবর্তীর অবকাশকালীন বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

আদালতে মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলমের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল। তাঁর সঙ্গে ছিলেন এ্যাডভোকেট নুসরাত ইয়াসমিন সুমাইয়া, মো. মোসাদ্দেক বিল্লাহ ও মো. রেজাউল করিম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল খুরশিদুল আলম।

উল্লেখ্য, গত ১৪ সেপ্টেম্বর স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-সচিব মো. মাহমুদুল আলম স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে (স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ের পৌর-১ শাখার ১২২১ নম্বর প্রজ্ঞাপনে) অসদাচরণ ও ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

এই বরখাস্তের আদেশ চ্যালেঞ্জ করে গত সোমবার হাই কোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় রিট আবেদন করেন মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম। আদালত সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলমের সাময়িক বরখাস্তের আদেশ কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুলও দিয়েছেন বলে জানিয়েছোন আইনজীবী রুহুল কুদ্দুস কাজল।

এর আগে গত ২০১৫ সালের ৩ ডিসেম্বর স্থানীয় সরকার বিভাগ দুর্নীতি ও ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগে মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলমকে বরখাস্ত করা হয়েছিল। পরে একই বছরের ৯ ডিসেম্বর উচ্চ আদালতে রিট করে মেয়র পদে পুনর্বহাল হয়েছিলেন তিনি।

সৈয়দ জাহাঙ্গীর বলেন, আমাকে বার বার বরখাস্তের আদেশ বর্তমান সরকারের জুলুম নির্যাতনেরই অংশ। আমি কোন অনিয়ম ও দুর্নীতির সাথে সম্পৃক্ত নই। দিনাজপুর পৌরসভার মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম বিএনপির রংপুর বিভাগীয় কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও দিনাজপুর জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য