মিয়ানমারের রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সমর্খন জানানোয় বিজেপির আসাম ইউনিট তাদের নির্বাহী কমিটি থেকে মুসলিম সংখ্যালঘু এক নেত্রীকে বরখাস্ত করেছে।

ওই নেত্রীর নাম বেনেজির আরফান; তিনি আসামে তিন-তালাক বিরোধী আন্দোলনে বিজেপির মুখপাত্র ছিলেন বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।

বেনেজির নিজেও তিন তালাকের শিকার। ২০১২ সালে তিনি বিজেপিতে যোগ দেন। সর্বশেষ বিধানসভা নির্বাচনে তিনি বিজেপির টিকেটে প্রতিদ্বন্দ্বিতাও করেছিলেন।

কয়েকদিন আগে এক ফেইসবুক পোস্টে বেনেজির রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমার সরকারের আচরণের প্রতিবাদে আয়োজিত ভুখা সমাবেশে যোগ দিতে অনুরোধ জানানোর পর দলের পক্ষ থেকে এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার বিজেপির আসাম ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক দিলিপ সাইকিয়া এক চিঠিতে বেনেজিরকে দল থেকে বরখাস্ত করার পাশাপাশি কেন সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না তার কারণ দর্শাতে তিন দিনের সময় দেন।

এর উত্তরে বেনেজির ক্ষমা চাইলেও লাভ হয়নি বলে এনডিটিভি জানিয়েছে।

“ব্যক্তি হিসেবে আমি (মিয়ানমারে) এই ধরনের আক্রমণ সমর্থন করি না, এবং এজন্যই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তা শেয়ার করেছি। এটা এখানে আমাদের পার্টিপ্রধান রনজিৎ দাস পছন্দ করেননি। কী জন্য আমার এই অবস্থান পার্টি তা জিজ্ঞেসও করেনি এবং কারণ দর্শানো নোটিস ছাড়াই আমাকে বরখাস্ত করেছে,” এনডিটিভিকে এমনটাই বলেন বেনেজির।

বেনেজির ফেইসবুক পোস্টে যে প্রতিবাদ কর্মসূচি শেয়ার করেছিলেন তার আয়োজক ছিল গুয়াহাটিভিত্তিক এনজিও ইউনাইটেড মাইনরিটি পিপলস ফোরাম। শনিবার তাদের সমাবেশটি অনুষ্ঠিত হয়।

মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর দমন-পীড়নের মুখে ২৫ অগাস্ট থেকে পালিয়ে বাংলাদেশ আসা শুরু করে রোহিঙ্গারা। জাতিসংঘ ও সরকারি হিসাবে এরই মধ্যে নতুন করে প্রায় চার লাখ শরণার্থী বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। এই সংখ্যা ১০ লাখ ছাড়িয়ে যেতে পারে বলেও শঙ্কা তাদের।

এরই মধ্যে প্রায় ৪০ হাজার রোহিঙ্গা শরণার্থী ভারতে আশ্রয় নিয়েছে বলেও এনডিটিভির খবর। ভারত সরকার এসব শরণার্থীকে ‘অবৈধ’ ঘোষণা করে তাদের ফেরত পাঠাতে নির্দেশ জারি করেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য