দিনাজপুর সংবাদাতাঃ “পাসপোর্ট নাগরিক অধিকার-নিঃস্বার্থ সেবাই অঙ্গীকার” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় ও দিনাজপুর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের আয়োজনে পাসপোর্ট সেবার মান উন্নয়ন ও সেবা সহজীকরন বিষয়ক আলোচনা ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম। দিনাজুপর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের সহকারী পরিচালক রোতিকা সরকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহফুজ্জামান আশরাফ।

মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক মো. ইমতিয়াজ হোসেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. গোলাম রাব্বী, দিনাজপুর এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী মো. খলিলুর রহমান, দিনাজপুর পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের অধ্যক্ষ প্রকৌশলী মো. মুসলিম উদ্দীন, দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি মো. মতিউর রহমান, দিনাজপুর চেম্বারের সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. আনোয়ারুল ইসলাম, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ ঘোষ কাঞ্চন, জেলা দোকান মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো. জহির শাহ্, সচেতন নাগরিক কমিটি সনাকের সভাপতি ও সাবেক পৌর মেয়র সফিকুল হক ছুটু, জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. সাখাওয়াত হোসেন সরকার প্রমূখ।

অনুষ্ঠানে পাসপোর্ট সেবা প্রদানকারী ও সেবাগ্রহীতা ছাড়াও সাংবাদিকসহ সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য, উক্ত অনুষ্ঠানে ঢাকা আগারগাঁও ইমিগ্রেশন পাসপোর্ট অধিদপ্তর থেকে সরাসরি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উপস্থিত অতিথি ও সেবাগ্রহীতাদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন পরিচালক এবং উপ-পরিচালকবৃন্দ।

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, পাসপোর্ট গ্রহনে পূর্বে ব্যাপক ভোগান্তি পোহাতে হতো। বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার মাধ্যমে ডিজিটাল পাসপোর্ট প্রদান করে এই সেবা জনগনের দোরগোড়ায় পৌছে দিতে সক্ষম হয়েছেন। এখন কোন প্রকার ভোগান্তি ছাড়াই মানুষ পাসপোর্ট সেবা পাচ্ছে। পাসপোর্ট অফিসের সর্বস্তরে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা হয়েছে। যার ফলে কোন দালাল বা কোন চক্রই এখানে এখন সুবিধা করতে পারছে না। মানুষ সরাসরিই সেবা পাচ্ছে। এরপরও যদি কোন সমস্যা বা কারও কিছু বুঝতে অসুবিধা হয়, তাদের জন্য অফিস চত্বরে একটি হেল্প ডেক্স স্থাপন করা হয়েছে।

এই হেল্প ডেক্স থেকেই মানুষ যে কোন তথ্য ও সরাসরি বিভিন্ন সেবা গ্রহন করতে পারবে। বক্তারা বলেন, কোন প্রকার দালালচক্রের ফাঁদে পা না দিয়ে সরাসরি অফিসে এসে সেবা চাইলেই দ্রুত সেবা প্রদান করা হচ্ছে। গ্রাহকদের মিথ্যা তথ্য প্রদান, তথ্য গোপন ও ত্রুটিপূর্ণ কাগজপত্র দাখিল থেকে বিরত থাকতে হবে। তবে বিভিন্ন কারনে পাসপোর্ট দিতে দেরী হলে সেজন্য সরাসরি অফিসেই যোগাযোগ করতে হবে। অর্থাৎ সেবা প্রদানকারী ও সেবা গ্রহণকারীর মধ্যে সরাসরি যোগাযোগই আমাদের ভোগান্তি অনেকাংশে লাঘব করবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য