মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে একটি মাদ্রাসায় আগুন লেগে অন্তত ২৪ জন মারা গেছে। বিদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের উৎপত্তি বলে ধারণা করছেন কর্মকর্তারা। মাদ্রাসাটির উপরের দিকের একটি তলায় আগুন ছড়িয়ে পড়ে অধিকাংশ শিক্ষার্থী মারা যান।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার ভোরের এ ঘটনায় নিহতদের অধিকাংশই মাদ্রাসাটির ছাত্র বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা। এক বিবৃতিতে মালয়েশিয়ার দমকল বিভাগ জানিয়েছে, স্থানীয় সময় ভোর ৫টা ৪০ মিনিটের দিকে দারুল কুরান ইত্তিফাকিয়াহ্ নামের ওই হাফিজি মাদ্রাসায় আগুন লাগার খবর পাওয়া যায়।

তিনতলা ভবনটির উপরের তলায় ঘুমানোর জায়গায় আগুন লেগে ছড়িয়ে পড়ে বলে বিবৃতিতে জানানো হয়। কর্মকর্তারা প্রথমে ২৫ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছিলেন, পরে সংশোধনে করে ২২ ছাত্র ও দুই তত্ত্বাবধায়কের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন।

ঘটনাস্থল থেকে ১১ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে এবং আহত সাতজনকে নিকটবর্তী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা।

এক সংবাদ সম্মেলনে কুয়ালালামপুরের পুলিশ প্রধান আমর সিং জানিয়েছেন, নিহত ছাত্রদের বয়স ১৩ থেকে ১৭ বছরের মধ্যে এবং তারা সম্ভবত ধোঁয়ায় শ্বাসরুদ্ধ হয়ে মারা গেছেন।

“ছাত্রাবাসটির একটিই প্রবেশ পথ ছিল, এতে অনেক ছাত্র ভিতরে আটকা পড়ে যায়”, বলেন তিনি।

কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন, আগুন লাগার পর সাহায্য চেয়ে ছাত্রদের চিৎকার করতে শুনেছেন তারা।

সিং বলেন, “এখনও মৃতদেহগুলো গোনা হচ্ছে, সেগুলো এক কোণায় একটির ওপর আরেকটি স্তূপ করে রেখে দেওয়া হয়েছে।”

আরো কিছু লাশ দমকল কর্মীরা সরিয়ে নিয়েছেন। মাদ্রাসাটির প্রাঙ্গণে নিহতদের পরিবারের লোকজনসহ কয়েকশত মানুষ জড়ো হয়েছেন।

এ ঘটনায় কোনো নাশকতার সন্দেহ করা হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন পুলিশ প্রধান।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত দমকল বিভাগের উপপরিচালক আবু ওবাইদাত বিন মোহাম্মদ সাইথালিমাত জানিয়েছেন, শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য