মাসুদ রানা পলক, ঠাকুরগাঁও থেকেঃ ঈদ শেষে ফিরতি পথে রানীশংকৈলে দূরপাল্লার বাসযাত্রীদের কাছ থেকে টিকিটের গলাকাটা দাম নেওয়া হচ্ছে। রানীশংকৈল থেকে- ঢাকা গামী তানজিলা পরিবহনে আজ সকাল ১১টায় সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় কাউন্টার ম্যানেজার তার দুটি সিট এর ভাড়া চেয়ে বসেন ১১শত করে ২২শ টাকা, পরে তিনি টিকিট দুটি ১৯শত টাকায় টিকিটে বিক্রি রিসিভ করেন।

ঢাকা গামী মোঃ লুৎফর রহমান ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন আজ ঈদ শেষ হয়েছে ৯দিন হয় আপনারা কি হিসেবে এখনও বাড়তি ভাড়া নিতেছেন, কাউন্টার ম্যানেজার ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন নিতে চাইলে নেন না হলে রাস্তা দেখেন, ঈদে একেকটি টিকিট ১২শ’টাকা পর্যন্ত বিক্রি করেছি। আপনি না গেলে অন্য আরও যাত্রী আছে যাবার তারা যাবে।

জানাযায়, ঈদ উপলক্ষে রানীশংকৈল থেকে ডে- নাইট মিলে প্রায় ১০০ খানেক গাড়ী প্রতিদিন যাতায়াত করছে। আর প্রতিটি গাড়ীতে একই অবস্থা বেশি ভাড়া নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে, তাদের ভাস্য মতে মালিক পক্ষের হুকুমেই আমরা বাড়তি ভাড়া নিতেছি। অথচ্য পবিত্র ঈদুল আজহার পরের ৯ দিনের জন্য প্রায় কোটি টাকারও বেশি বাড়তি ভাড়া আদায় করেছে কাউন্টার ম্যানেজাররা।

বাসযাত্রীরা অভিযোগ করেন, ঈদের আগে ঢাক থেকে রানীশংকৈল আসতে বেশি ভাড়া গুনে আসতে হয়েছে আজ আবার রানীশংকৈল থেকে ঢাকার পথে যেতেও সেই একই ঘটনা। আসলে কি আমাদের কথা ভাবার মত সময় কারও নাই। আমরা সরকার নির্ধারিত রেট দিয়েই যেতে চাই, অথচ্য কে শুনে কার কথা। কাকে বলতে জাব এই সব কথা বলে কি আর কিছু হয় এতো দিনেও কিছু হয়নি তাহলেকি আর কিছু হবে বলে মনে হয়।

যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ ঠাকুরগাঁও থেকে ঢাকার জিরো পয়েন্ট পর্যন্ত দূরত্ব দেখিয়েছে ৪৪৫ কিলোমিটার। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) নির্ধারণ করা দূরপাল্লার বাসভাড়ার তালিকায় এই দূরত্ব উল্লেখ করা হয়েছে ৩৮৭ কিলোমিটার। বিআরটিএ প্রতি কিলোমিটারের বিপরীতে বাসের ভাড়া ধরেছে ১ টাকা ৪২ পয়সা। সে হিসাবে ৩৮৭ কিলোমিটারের জন্য যাত্রীপ্রতি ভাড়া হয় ৫৪৯ টাকা ৫৪ পয়সা। এর সঙ্গে বঙ্গবন্ধু সেতু পারাপারের টোলের জন্য জনপ্রতি ২০ টাকা ধরে ভাড়া ৫৬৯ টাকা ৫৪ পয়সা হওয়ার কথা। কিন্তু বাংলাদেশ বাস ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের তৈরি করা সর্বশেষ দূরত্ব অনুযায়ী বাসের ভাড়া নির্ধারণ তালিকায় ঠাকুরগাঁও থেকে ঢাকার দূরত্ব দেখানো হয়েছে ৪২৫ কিলোমিটার। সে হিসাবে বাসভাড়া ৬০৩ টাকা ৫০ পয়সা হয়। এর সঙ্গে ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের ধরা যাত্রীপ্রতি সেতুর টোল ৩২ টাকা ৪০ পয়সা যোগ দিয়ে বাসভাড়া দাঁড়ায় ৬৩৫ টাকা ৯০ পয়সা। কিন্তু সংগঠনটি ঠাকুরগাঁও-ঢাকার বাসভাড়া দেখাচ্ছে ৮০১ টাকা ৮৬ পয়সা। তাহলে রানীশংকৈল থেকে ঠাকুরগাঁও এর ভাড়া ধরি ৫০টাকা তাহলে ৮৫১ টাকা ৮৬ পয়সা ।

এবিষয়ে রানীশংকৈল উপজেলা নির্বাহী অফিসার -খন্দকার নাহিদ হাসান বলেন- বিষয়টি আপনার মারফত জানতে পারলাম আজ রাতে ওসি সাহেবকে বলে আমরা বেড় হব দেখি কি করা যায়। আর রাস্তার উপড়ে গাড়ী গুলো যেখানে সেখানে রেখে রাস্তায় জানজট সৃষ্টি হয় সেটাও দেখবো ।

বিআরটিএ ঠাকুরগাঁও কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ ফারুক আলম বলেন, ঈদের ফিরতি পথে বাড়তি বাসভাড়া নেওয়ার কথা তিনি শুনেছেন। বিষয়টি যাচাই করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য