ব্যাপক শক্তি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের মূল ভূখণ্ডে আঘাত হানতে যাচ্ছে ঘূর্ণিঝড় ইরমা; ইতোমধ্যে ঘূর্ণিঝড়ের কাছাকাছি শক্তির দমকা বাতাস ফ্লোরিডার দক্ষিণের দ্বীপগুলোতে আছড়ে পড়তে শুরু করেছে।

আসন্ন ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ফ্লোরিডা উপকূলে সাগরের পানির উচ্চতা স্বাভাবিকের চেয়ে কয়েক ফুট বেড়ে গেছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

ঘূর্ণিঝড়ের ধ্বংসযজ্ঞ এড়াতে যুক্তরাষ্ট্রের এ অঙ্গরাজ্যটির প্রায় ৬৩ লাখ লোককে জরুরিভিত্তিতে সরে যেতে বলা হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানার আগের দিন ‘কেউ সরতে চাইলে তার জন্য অনেক দেরি হয়ে গেছে’বলে শনিবার হতাশা ব্যক্ত করেছেন ফ্লোরিডার গভর্নর রিক স্কট।

গত এক শতাব্দীর মধ্যে আটলান্টিক মহাসাগরে সৃষ্ট সবচেয়ে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ইরমা এরই মধ্যে ক্যারিবীয় অঞ্চলে তাণ্ডবলীলা চালিয়ে অন্তত ২৪ জনের প্রাণ নিয়েছে, এখন ধেয়ে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের দিকে।

শুরুতে পাঁচ মাত্রার শক্তিশালী ঝড় হিসেবে ক্যারিবীয় অঞ্চলের বিভিন্ন দ্বীপ পেরিয়ে এসে শুক্রবার কিউবায় আঘাত হানে ইরমা। এরপর ঝড়টি দুর্বল হয়ে তিন মাত্রার ঝড়ে পরিণত হয়েছে বলে যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল হারিকেন সেন্টার (এনএইচসি) জানিয়েছে।

ঘণ্টায় ১৯৩ কিলোমিটার গতির বাতাসের বেগ নিয়ে ঝড়টি এখন অগ্রসর হচ্ছে; যদিও ফ্লোরিডায় আঘাত হানার আগে এটি পুনরায় শক্তি অর্জন করতে পারে বলে আশঙ্কা করছে এনএইচসি।

তাদের সর্বশেষ সতর্কবার্তায় বলা হয়েছে ‘প্রাণঘাতী একটি ঝড়’ ফ্লোরিডার দক্ষিণের ছোট ছোট দ্বীপগুলো এবং পশ্চিম উপকূলে আছড়ে পড়তে যাচ্ছে।

রোববার সকালে ইরমা ফ্লোরিডায় আঘাত হানতে পারে বলে ধারণা করা হলেও এরই মধ্যে অঙ্গরাজ্যটির দক্ষিণে এর প্রভাব দেখা দিতে শুরু করেছে, মিয়ামি শহরের কেন্দ্রস্থলে ভারি বৃষ্টিপাত হচ্ছে।

জরুরি ব্যবস্থাপনা সংস্থা ফিমার প্রধান ব্রুক লং সিএনএনকে বলেছেন, “ফ্লোরিডার কেন্দ্রস্থলে নিরাপদ কোনো জায়গা নেই, এর মধ্যে যদি সরে না থাকেন, তাহলে আপনি জীবন হাতে নিয়ে ঘুরছেন।”

গভর্নর স্কট বাসিন্দাদের সতর্ক করে বলেছেন, “আপনি যদি খালি করে ফেলার নির্দেশিত এলাকাগুলোর মধ্যে এখনো থাকেন, তাহলে আপনাকে আশ্রয় খুঁজতে হবে, হাতে খুব বেশি সময় নেই। ঝড় আসছে, অনেক দূরে চলে যাওয়ার মতো সময় আর নেই।”

ফ্লোরিডার হাজার হাজার বাসিন্দা এখন বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন অবস্থায় আছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

টাম্পা বে ও সেইন্ট পিটার্সবার্গ শহর ঝড়ের পথে থাকায় সেখানে ভয়াবহ ক্ষতি হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। ৩০ লাখ বাসিন্দার টাম্পা বে ১৯২১ সালের পর এবারই প্রথম কোনো শক্তিশালী ঝড়ের মুখে পড়তে যাচ্ছে।

ঝড়ের আঘাতে উপকূলের পানি ১৫ ফুট উচ্চতায় উঠতে পারে এবং এতে কারো পক্ষে টিকে থাকা অসম্ভব বলে মন্তব্য করেছেন গভর্নর স্কট।

অঙ্গরাজ্যের প্রায় ৫০ হাজার বাসিন্দাকে আশ্রয়কেন্দ্রে সরিয়ে নিয়েছে ফ্লোরিডা সরকার। কয়েকটি এলাকায় আশ্রয়কেন্দ্রগুলো দ্রুত ভরাট হয়ে যাওয়ায় জায়গা না পেয়ে অনেকেই ফিরে গেছেন বলে জানিয়েছে স্থানীয় গণমাধ্যমগুলো ।

সড়কে যানজট ঠেকাতে মিয়ামি ও ব্রোয়ার্ড কাউন্টি কারফিউ জারি করেছে বলে জানা গেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য