পরিবারের সবার সাথে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে নীলফামারীর ডোমার উপজেলায় নিজ বাড়িতে আসেন আনছারুল হক (৩৮) ও একরামুজ্জামন বুলবুল(৪৭)।

আনছারুল উপজেলার জোড়াবাড়ি ইউনিয়নের জোড়াবাড়ি গ্রামের মৃত নখি মাহমুদের ছেলে ও ঢাকায় সমাজ সেবা অধিদপ্তরের এমএলএসএস পদে চাকরি করেন এবং একরামুজ্জামান বুলবুল একই ইউনয়িনের হলহলিয়া গ্রামের মৃত মমতাজ উদ্দিনের ছেলে ও জনশক্তি রপ্তানীর একটি বেসরকারী এজেন্সিতে চাকরি করেন।

ঈদের ছুটি কাটিয়ে কর্মস্থলে যোগ দেওয়ার জন্য বাস ও ট্রেনের কোন টিকেট না পেয়ে মটরসাইকেলে ঢাকা যাওয়ার সিন্ধান্ত নেয় তারা। রবিবার সকাল ৭ টায় আনছারুল ও বুলবুল দুজনের নিজ বাড়ি হতে একসাথে হয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দেয় মটরসাইকেলে।

পথিমধ্যে সকাল ১০ টার দিকে রংপুরের হাজিরহাট মুছির মোড় এলাকায় বিপরিদ দিক থেকে আসা রংপুর হতে গঙ্গাচড়ার বেতগাড়াগামী একটি লোকাল বাসের সাথে তাদের মটরসাইকেলের মুখোমূখি সংঘর্ষ ঘটে।

এতে গুরুত্বর আহত অবস্থায় আনছারুল ও বুলবুলকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাদের মৃত ঘোষনা করেন। তাদের লাশ ডোমার উপজেলায় নিজ নিজ বাড়িতে আনা হয়েছে।

এসময় উত্তেজিত জনতা প্রায় ঘন্টাখানিক রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। রংপুর কোতয়ালী থানার এসআই নুর আলম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য