ইতালির রাজধানী রোম থেকে ৫০ কিলোমিটার দক্ষিণে বন্দর শহর অ্যানজিওতে তিন ব্যক্তির শরীরে মশাবাহিত চিকুনগুনিয়া জ্বর ধরা পড়েছে।

ভাইরাসজনিত এই জ্বরটিতে সচরাচর কেউ মারা না গেলও তীব্র জ্বর ও গিটে ব্যাথা হয় এবং এই রোগের কোনো প্রতিকার নেই বলে বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

ক্রান্তীয় অঞ্চলে এই জ্বরের প্রাদুর্ভাব ব্যাপক হলেও অ্যানজিওর ওই তিন ব্যক্তি স্থানীয়ভাবেই এতে আক্রান্ত হয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে, জানিয়েছে ইতালির গণমাধ্যমগুলো।

এই রোগ ধরা পড়ার পর অ্যানজিওতে স্বেচ্ছারক্তদান বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এর আগে ৩ সেপ্টেম্বর উত্তর ইতালিতে সেরেব্রাল ম্যালেরিয়ায় একটি বালিকা মারা গিয়েছিল।

১৯৫০-র দশকে মশায় ভরা জলাভূমিগুলোর পানি সরিয়ে নেওয়ার পর থেকে ইতালিতে চিকুনগুনিয়া ও ম্যালেরিয়া উভয়ই খুব বিরল হয়ে গেছে। আলাদা দুটি মশার প্রজাতি বাহিত হয়ে রক্তের এই রোগদুটি মানুষের শরীরে ছড়িয়ে পড়ে।

কীভাবে ভাইরাসটি অ্যানজিওতে এসেছে তা পরিষ্কার নয়। কিন্তু যে এলাকাটি থেকে এটি ছড়াচ্ছে বলে ধারণা করা হচ্ছে সেখানে ওষুধ প্রয়োগ করা হচ্ছে।

২০০৭ সালে ইতালির এমিলিয়া রোমাগনা এলাকায় প্রথমবারের মতো স্থানীয়ভাবে ছড়িয়ে পড়া চিকুনগুনিয়ার প্রাদুর্ভাব দেখা গিয়েছিল।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য