দিনাজপুর সংবাদাতাঃ বিচারপতি এম এনায়েতুর রহিম বলেছেন, প্রয়াত এম আব্দুর রহিম ছিলেন একজন দেশপ্রেমিক, সৎ,সাহসী, সমাজসেবক ও নিষ্ঠাবান ব্যক্তি। অর্থের প্রতি তাঁর কোন ধরনের লোভ-লালসা ছিল না। নিজের পৈতৃক সম্পত্তি বিক্রি করে তিনি আজীবন সমাজের অবহেলিত ও বঞ্চিত মানুষের সেবা করেছেন। তাঁর স্মরনে এই স্মরনসভার আয়োজন করার জন্য আমি দিনাজপুরবাসির প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই।

শুক্রবার (৮ সেপ্টেম্বর) বেলা ১২টায় দিনাজপুর বড় ময়দানে বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ট সহচর, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠনক, সংবিধান প্রণয়ন কমিটির সদস্য ও সাবেক এমপি মরহুম জননেতা এম. আব্দুর রহিম’র প্রথম মৃত্যু বার্ষিকীর স্মরন সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। দিনাজপুর এম. আব্দুর রহিম সমাজকল্যাণ ও মুক্তিযুদ্ধ গবেষনা কেন্দ্র এই স্মরন সভার আয়োজন করে।

মরহুমের বড় ছেলে বিচারপতি এনায়েতুর আরো বলেন, এম. আব্দুর রহিম সমাজকল্যাণ ও মুক্তিযুদ্ধ গবেষনা কেন্দ্রের পক্ষ থেকে যে কোন ধরনের উদ্যোগকে আমাদের পরিবার স্বাগত জানাবে। ভবিষ্যতে এই প্রতিষ্ঠান এম আব্দুর রহিম পদক, শিক্ষাবৃত্তিসহ অন্যান্য সমাজসেবামূলক কার্যক্রম গ্রহণ করলে তাঁর পরিবার সার্বিক সহযোগিতা করবে।

এম. আব্দুর রহিম সমাজকল্যাণ ও মুক্তিযুদ্ধ গবেষনা কেন্দ্রের সভাপতি সিনিয়র আইনজীবী এ্যাডভোকেট আজিজুল ইসলাম জুগলু’র সভাপতিত্বে স্মরন সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন দিনাজপুর-১ (বীরগঞ্জ-কাহারোল) আসনের সংসদ সদস্য মনোরঞ্জনশীল গোপাল, সিনিয়র আইনজীবী মো. ইছাহক, দিনাজপুরের সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ হোসেন শহীদ আহমেদ, জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আজিজুল ইমাম চৌধুরী, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ ঘোষ কাঞ্চন প্রমূখ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন এম. আব্দুর রহিম সমাজকল্যাণ ও মুক্তিযুদ্ধ গবেষনা কেন্দ্রের কার্যকরি সভাপতি মো. সফিকুল হক ছুটু ও অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক চিত্ত ঘোষ প্রমূখ।

অনুষ্ঠানে মরহুম এম আব্দুর রহিমেন ছোট ছেলে জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বজলুল হক, মো. আলাউদ্দিন, শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. আনোয়ারুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক এসএম খালেকুজ্জামান রাজুসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষিকা, বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও পেশাজীবী সংগঠনের ব্যক্তিবর্গ, জনপ্রতিনিধি, সরকারী-বেসরকারী প্রতিষ্ঠিানের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও বিপুল সংখ্যক মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, অনুষ্ঠানে প্রধান হিসেবে জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, বিশেষ অতিথি প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা বিশিষ্ট গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব ইকবাল সোবহান চৌধুরী, বিচারপতি ওবায়দুল হাসান আসার কথা থাকলেও দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে তারা আসতে পারেননি বলে অনুষ্ঠানে জানানো হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য