সুবল রায়, বিরল থেকেঃ দিনাজপুরের বিরলে শশুর বাড়ীতে বেড়াতে এসে স্ত্রীর উপর অভিমান করে স্বামী গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতল মর্গে পাঠিয়েছে।

এলাকাবাসি সুত্রে জানা গেছে, বিরল উপজেলার পলাশবাড়ী ইউপির পলাশবাড়ী গ্রামের সামশুদ্দিনের মেয়ে সাবিনা ই্য়াসমিন (২৭) এর সাথে গত ৯-১০ বছর আগে কাহারোল উপজেলার দশমাইল জামতলী এলাকার নজরুল ইসলামের ছেলে মিজানুর রহমানের (৩২) সামাজিকভাবে বিয়ে হয়। তাঁদের দাম্পত্য জীবনে একটি কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। তাঁর নাম বৃষ্টি আর্ণিকা মিতু বয়স আট বছর। স্বামী মিজানুর রহমান শারীরিক ভাবে অসুস্থ্য হওয়ায় সংসারে অভাব অনটন লেগেই থাকত।

নিহতরে স্ত্রী সাবিনা বলেন, শাশুর বাড়ীর লোকজন বিভিন্ন ভাবে তাঁকে নির্যাতন করত। স্বামীর সংসারে অভাব অনটন ও শশুরবাড়ির লোকজনের নির্যাতন সইতে না পেরে প্রায় ৯/১০ মাস আগে তাঁর পালিত বাবা পলাশবাড়ী গ্রামের আলহাজ্ব মোজাহারুল ইসলামের বাড়িতে কোলের শিশু সন্তানসহ চলে আসে। মাঝে মধ্যে স্বামী মিজানুর শশুড় বাড়িতে আসা যাওয়া করতো বলেও জানান।

গত ঈদের পরের দিন রোববার সন্ধ্যায় মিজানুর স্ত্রী সাবিনার নিকট আসে। গত বুধবার রাত ১০ টার দিকে স্বামী-স্ত্রী এক সাথে একই ঘরে টেলিভিশন দেখে সাবিনা তাঁর মায়ের ঘরে ঘুমাতে যায়। সকালে ঘুম থেকে উঠতে দেরি হবার কারণে ঘরে গিয়ে দেখে স্বামী মিজানুর ঘরের বর্গার সাথে গলায় রশি দিয়ে ফাঁস দিয়ে ঝুলে আছে।

এ ব্যাপারে বিরল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল মজিদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। পুলিশের ধারনা স্বামী-স্ত্রী কলহের কারনে সে আত্মহত্যা করতে পারে। পুলিশ লাশের সুরুত হাল রিপোর্ট শেষে ময়না তদন্তের জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় বিরল থানায় একটি ইউ,ডি মামলা দায়ের হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য