ফুলবাড়ী( দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে কোরবানীর চামড়ার বাজারে ধস নামায় বিপাকে পড়েছে চামড়ার ক্ষুদ্র ও মৌসুমী ব্যসায়ীরা। সরকারের ঘোষিত দামে চামড়া কিনে তা মহাজনের নিকট বিক্রি করতে না পারায়, মোটা অংকের লোকশানে পড়েছে চামড়ার ক্ষুদ্র ও মেীসুমী ব্যবসায়ীরা।

চামড়ার পাইকারী বাজারে গিয়ে দেখা যায় গরুর চামড়ার দাম প্রকার ভেদে ৬০০ টাকা থেকে ৮০০ টাকা, ও ছাগলের চামড়া ১০ টাকা থেকে ৫০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে।

চামড়ার মৌসুমী ব্যবসায়ীরা বলছেন, সরকার চামড়ার মূল্য গরুর চামড়া প্রতি বর্গফুট ৫০টাকা ও ছাগলের ৩০ টাকা নিদ্ধারন করেছে, সেই দাম অনুযায়ী হিসেবে করে তারা কোরবানীর স্থান থেকে চামড়া কিনেছেন, কিন্তু চাড়ার মহাজনেরা বর্গফুটের হিসেব ছাড়ায়, গরুর চামড়া ৬০০ টাকা থেকে ৮০০ টাকার বেশি কিনছেনা, ফলে তারা এখন বড়রকমের লোকশানের মুখে পড়েছেন। মৌসুমী ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা বলছেন তারা প্রতিটি চামড়া গরুর ৮০০ টাকা থেকে এক হাজার টাকা পর্যন্ত কিনেছেন।

চামড়ার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সাইলুর রহমান বলেন সে বিভিন্ন জনের নিকট থেকে টাকা ঋন নিয়ে চামড়া কিনেছেন, এখন চামড়া বিক্রি করে সেই টাকা পরিষোধ করা কঠিন হয়ে পড়েছে, একই কথা বলেন চামড়ার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী কোরবান আলী, সাগীর হোসেন আরিফ হোসেন, মৌসুমী ব্যবসায়ী রমেস চন্দ্র ও রুহিনী কান্ত, তারা বলেন চামড়ার ক্ষুদ্র ও মৌসুমী ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন জনের নিকট থেকে ঋন নিয়ে চামড়া কিনেছেন, এখন প্রতিটি চামড়ায় তাদের ১০০টাকা থেকে ২০০ টাকা পর্যন্ত লোকশান গুনতে হচ্ছে, এতে তাদের মাথায় হাত পড়েছে।

এদিকে চামড়ার মহাজন ইউনুস আলী ও কুরবান আলী বলছেন ঢাকার ট্যানারী মালিকের নিকট গত বছর কুরবানীর ঈদের চামড়ার টাকা আজো পড়ে আছে, অধিকাংশ ট্যানারী মালিকের ব্যবসা বন্ধ হয়ে আছে, দেশের চামড়ার ট্যনারী মালিকেরা চামড়া কেনার আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছে, তাই তারা কম দামে চামড়া কিনছেন। তারা বলেন মহাজনের সাথে পরামর্শ না করে, চামড়ার ক্ষুদ্র ও মৌসুমী ব্যবসায়ীরা চামড়া কিনেছেন, এই কারনে তাদের দেয়া মূল্যে চামড়া কিনা সম্ভাব হচ্ছেনা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য