বৃদ্ধা মাকে বেঁধে রেখে তিন সন্তানের জননী ফেন্সি বেগমকে রাতের আঁধারে বাড়ি হতে তুলে নিয়ে গিয়ে তিস্তা নদীর দূর্গম চরে গণধর্ষনের ঘটনার মামলার প্রধান আসামি ও ধর্ষক আবদুর রহিমকে(৩০) পুলিশ গ্রেফতার করেছে।

রবিবার দুপুরে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার ডালিয়ার এক নম্বর বাজার হতে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত আবদুর রহিম ওই উপজেলার খালিশা চাঁপানী ইউনিয়নের ছাতুনামা গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিমলা থানার এসআই সাহাবুদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অশোক কুমার পাল এর নেতৃত্বে মামলার প্রধান আসামি রহিমকে গ্রেফতার করা হয়।

ধর্ষিতা গৃহবধুর স্বামী রফিকুল ইসলাম ঢাকায় রিক্সা চালানোর কারণে তার অনুপস্থিতির সুযোগে গত ১৯ আগস্ট গভীর রাতে ডিমলা উপজেলার ঝুনাগাছ চাপানি ইউনিয়নের পশ্চিম ছাতুনামা গ্রামের ওই গৃহবধুকে তুলে নিয়ে যায় আসামীরা। এ সময় ওই গৃহবধুর বৃদ্ধা মা ফাতেমা বেগম বাঁধা দিতে গেলে তাকে আসামিরা দড়ি দিয়ে জামাতার উঠানে বেঁেধ রাখে।

ঘটনার পর দিন দুপুরে ওই গৃহবধুকে তিস্তার দূর্গম চরে সংজ্ঞাহীন ও হাত বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ। উদ্ধারের পর ধর্ষিতা ও তার মাকে প্রথমে ডিমলা হাসপাতালে ও পরে ওই গৃহবধুকে নীলফামারী সদর আধুনিক হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়।

জ্ঞান ফিরে এলে ধর্ষিতা গৃহবধু অভিযোগ করে আসামীদের মধ্যে দুইজন তাকে গণধর্ষন করে। তার ডাক্তারী পরীক্ষা করা হলে গণধর্ষনের আলামত পাওয়া যায়। এ ঘটনায় ধর্ষিতার পিতা কলিম উদ্দিন বাদী হয়ে ডিমলা থানায় ৯জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য