দিনাজপুরের খানসামায় পারিবারিক ও ব্যক্তিগত বিষয়কে কেন্দ্র করে মোছাঃ তহিদা বেগম (৩০) নামে ২ সন্তানের জননীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে তার স্বামী। নিহত মোছাঃ তহিদা বেগম খানসামা উপজেলার ভাবকী ইউনিয়নের আগ্রা শাহ্পাড়া গ্রামের আব্দুস সাত্তারের চতুর্থ কন্যা।

শুক্রবার দিবাগত রাত ১০টায় ঘটনাটি ঘটেছে খানসামার কাচিনীয়া বাজার সংলগ্ন ফেরদৌস মাস্টারের ভাড়া দেয়া বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। এদিকে, ঘটনার পর নিহতের স্বামী মজনু রহমান (৪৫) পলাতক রয়েছে। পুলিশ ও এলাকাবাসীরা জানায়, প্রায় ১৫ বছর আগে খানসামার খামারপাড়া ইউনিয়নের জুগির ঘোপা গ্রামের মৃত দলিমত আলীর ছেলে মজনু রহমানের সাথে মোছাঃ তহিদা বেগমের বিয়ে হয়। কয়েক মাস ধরে কাচিনীয়া হাটের ফেরদৌস মাস্টারের বাড়িতে ভাড়ায় বসবাস করছেন তারা। এরপূর্বে তারা একই এলাকার বিভিন্ন বাড়িতে ভাড়া থাকত। শুক্রবার দিবাগত রাত প্রায় ১০টার দিকে হঠাৎ ওই বাসা থেকে তহিদার ছেলে মেয়েদের কান্নার চিৎকার শুনতে পেয়ে বিভিন্ন জন ছুটে যায়। সেখানে তহিদা বেগমের শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চি‎‎হ্ন। রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে দ্রুত হাসপাতালে নেওয়ার পথে তহিদা বেগম মারা যায়।

খানসামা থানার ওসি আব্দুল মতিন প্রধান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সংসারের আয়-রোজগার করতে মজনু রহমান তার স্ত্রী সন্তানদের রেখে প্রায় সময় বাড়ির বাইরে কাজে থাকত। এতে স্বামী-স্ত্রীর দূরত্ব তৈরি এবং উভয়ের মধ্যে কলহের সৃষ্টি হয়। ধারণা করা হচ্ছে পারিবারিক বিষয়কে কেন্দ্র করে ঝগড়া বিবাদের এক পর্যায়ে মজনু তার স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা করতে পারে। ময়না তদন্তের জন্য লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য