রাজ পরিবারের প্রথা ও ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে দিনাজপুরে শ্রী শ্রী কান্তজীউ বিগ্রহ নদীপথে পুলিশী প্রহরায় শুক্রবার সকালে কান্তনগর মন্দির থেকে যাত্রা করে রাত ১০টার দিকে দিনাজপুরের রাজবাড়ী মন্দিরে এসেছে।

শুক্রবার ভোর হতে শত শত ভক্তদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠে কান্তজীউ মন্দির প্রাঙ্গন। নৌকার বহর নিয়ে কান্তজীউ বিগ্রহটি কান্তনগর ঘাট থেকে ঢেপা নদী হয়ে সকাল সাড়ে ৮টায় দিনাজপুরের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়।

এ সময় নদীর দু’পাশে বিভিন্ন ঘাটে হাজার হাজার ভক্ত ও দর্শনার্থী ফল-ফলাদি নিয়ে অবস্থান নেয়। তারা এসব ফল-ফলাদি কান্তজীউ বিগ্রহকে উৎসর্গ করে।
এসময় দিনাজপুর যাওয়ার পথে বিভিন্ন ঘাটে ঘাটে ভক্তদের দাড়িয়ে থাকতে দেখা যায়্ ।

ভক্তদের একজন কাহারোলের সুকুমার রায় জানান, শুক্রবার সকাল সাড়ে ৮টায় পূজা অর্জনা ও ভক্তদের কীর্তন সহকারে শ্রী শ্রী কান্তজীউ যুগল বিগ্রহ (রাধা-কৃষ্ণ প্রতিমা) দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলার কান্তনগর মন্দির হতে যাত্রা শুরু করে।

রাজ দেবোত্তর এস্টেট দিনাজপুরের এজেন্ট অমলেন্দু ভৌমিক জানায়, ২০ কিলোমিটার নদীপথে পাড়ি দিয়ে কান্তজীউ বিগ্রহের নৌবহরটি শুক্রবার সন্ধ্যায় দিনাজপুর শহরের কাঞ্চন সাধুরঘাটে এসে পৌছলে সেখানে পূজা অর্চনা করা হয়। পরে পদব্রজে (পায়ে হেঁটে) শোভাযাত্রা শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিন করে দিনাজপুরের রাজবাড়ী মন্দিরে নিয়ে আসা হয়।
সাধুর ঘাটে শ্রী শ্রী কান্তজীউ বিগ্রহ’র আগমনকে অভ্যার্থনা জানায় জাতীয় সংসদের হুইপ এম ইকবালুর রহিম এমপি। এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম ও পুলিশ সুপার হামিদুল আলম সহ বিভিন্ন কর্মকর্তা বৃন্দ।

উল্লেখ্য, প্রায় ৪শ` বছরের ঐতিহ্যবাহী এই পূজা প্রতিবছর আয়োজন করা হয় পুনর্ভবা নদীর কান্তনগর ঘাটে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য