দিনাজপুর ঘোড়াঘাট উপজেলা ওসমানপুরে অবস্থিত ওয়েলকাম ডায়াগনষ্টিক সেন্টার থেকে ম্যাজিষ্ট্রেট যাওয়ার আগেই পালিয়ে গেলেন জয়পুরহাট হাসপাতালে কর্তব্যরত ডাক্তার সাইফুল ইসলাম। একই স্থানে শহরতলী মঞ্জিলে অবস্থিত অপর একটি লাইফ কেয়ার ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের সিলগালা ও ৩ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

জানা যায়, ঘোড়াঘাট উপজেলা ওসমানপুরে অবস্থিত ওয়েলকাম ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে দীর্ঘ দিন থেকে প্রতি রবিবারে জয়পুরহাট সদর হাসপাতালে কর্তব্যরত কার্ডিওলজি বিভাগের ডাক্তার সাইফুল ইসলাম সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৪ট পর্যন্ত রোগী দেখেন। এ সংবাদের ভিত্তিতে রবিবার বেলা ১১টায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট টি এম এ মমিন ওয়েলকাম ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে পুলিশ সহ অভিযান চালান।

অভিযানের পূর্বে ডাক্তার সাইফুল ইসলাম ম্যাজিষ্ট্রেট আসার পূর্বেই পালিয়ে জান। অভিযান কালে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ওয়েলকাম ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের কাগজপত্র পর্যবেক্ষ করেন। ওয়েলকাম ডায়াগনষ্টিক সেন্টারটির শুধু মাত্র রক্ত সঞ্চালন ছাড়া প্যাথলজিক্যাল বিষয়ে লাইসেন্স প্রদান করা হয়েছে। সেখানে চেম্বার খুলে ডাক্তার বসিয়ে চিকিৎসা ব্যবস্থাপত্র সহ বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার ডায়াগনষ্টিক সেন্টারটির কোন জরিমানা না করে অনুমতি বিহীন কাজ না করার জন্য নির্দেশ দেন। অপরদিকে একই দিন বেলা ২টায় ওসমানপুর বাজারের পশ্চিমে শহরতলী মঞ্জিলে অবস্থিত লাইফ কেয়ার ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে অভিযান চালান।

ওই সেন্টারের কোন বৈধ্য কাগজপত্র বা অনুমতি না থাকায় ডায়াগনষ্টিক সেন্টারটি বন্ধ করে দিয়ে সিলগালা করেন এবং ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের শর্তাধিকারী কাঞ্চন এর ৩ হাজার টাকা জরিমানা ও অনাদায়ে ২ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন নিবাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য