ভারতের উত্তর প্রদেশে ট্রেন লাইনচ্যুত হয়ে অন্তত ২৩ জন নিহত এবং আরো ৬০ জনের বেশি আহত হয়েছে।

টেলিভিশনে প্রচারিত ছবিতে দেখা যাচ্ছে লাইনচ্যুত বগিগুলোর একটি আরেকটি বগির ওপর উঠে গেছে। একটি বগি রেললাইনের পাশের একটি ঘরে উঠে যায়।

ট্রেনটি মন্দিরের শহর পুরি থেকে হিমালয়ের পাদদেশে, আরেকটি ধর্মীয়ভাবে গুরুত্বপূর্ণ শহর হরিদ্বারের দিকে যাচ্ছিল।

পুলিশ বলছে রাজধানী নয়া দিল্লি থেকে প্রায় ১৩০ কিলোমিটার উত্তরে মুজাফফরনগরের কাছে এ দুর্ঘটনা ঘটে এবং অন্তত আটটি বগি লাইনচ্যুত হয়ে পড়ে।

দুর্ঘটনার কারণ এখনো জানা যায়নি।

শনিবার সন্ধ্যার দিকে এ ঘটনা ঘটলেও রাতব্যাপী উদ্ধার অভিযান চালিয়েছে উদ্ধারকর্মীরা।

“ট্রেনের ভেতর থেকে আহত যাত্রীদের বের করে আনতে আমাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। এখন অনেক অন্ধকার হবার কারণে পুরোদমে উদ্ধার অভিযান চালানো সম্ভব হচ্ছে না। কিন্তু আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি” ঘটনাস্থল থেকে বলে পুলিশ কর্মকর্তা অজয় পান্ডে।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এ ঘটনায় শোক প্রকাশ করে নিহতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন ।

ভারতে ট্রেন দুর্ঘটনা নতুন কিছু নয়। প্রতিদিন ভারতে প্রায় ২ কোটি ২০ লাখ মানুষ ট্রেনে যাতায়ত করে, অথচ রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের বেশিরভাগ যন্ত্রপাতি মেয়াদোত্তীর্ণ।

গত বছর নভেম্বর মাসে উত্তর প্রদেশের কানপুরের কাছে একটি ট্রেন লাইনচ্যুত হবার ঘটনায় দেড়শো মানুষ নিহত হয়। এর আগের বছর একই প্রদেশে ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহত হয় ৩৯ জন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য