দিনাজপুর সংবাদাতাঃ ১৯ আগষ্ট শনিবার হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আকষ্মিক পরিদর্শনে যান।

পরিদর্শনে গিয়ে দেখতে পান- আউটডোর ওয়ার্ডের দায়িত্বপ্রাপ্ত আউটডোর মেডিকেল অফিসার ডাঃ রিয়াসাত মাহবুব ফাঁকা ব্যবস্থাপত্রে স্বাক্ষর করে ভূয়া চিকিৎসক জনৈক মাহবুব আলমকে প্রদান করেন।

এপ্রোন পরিহিত মাহবুব আলম রোগী দেখে ডাক্তারের স্বাক্ষরিত ফাঁকা ব্যবস্থাপত্রে ঔষধ লিখে দিচ্ছেন, আর আউটডোর মেডিকেল অফিসার ডাঃ রিয়াসাত মাহবুব স্বাভাবিক পোষাকে পাশের চেয়ারে বসে আছেন।

হুইপ ইকবালুর রহিম তাৎক্ষনিক ভাবে ভূয়া চিকিৎসক মাহবুবকে ব্যবস্থাপত্রসহ হাতে-নাতে আটক করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেন। এ সময় আরো কিছু সংখ্যক ভূয়া চিকিৎসক পালিয়ে যায়। হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি মুঠোফোনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে বিষয়টি অবহিত করেন।

মহাপরিচালক এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আউটডোর মেডিকেল অফিসার ডাঃ রিয়াসাত মাহবুব (কোড নং ১৩১১৮৪) কে তাৎক্ষনিক সাময়িক বরখাস্ত করে তাঁর বিরূদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ প্রদান করেন।

এ ব্যাপারে এম. আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ সারোয়ার জাহান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, বিষয়টি তদন্তে একটি তদন্ত কমিটি গঠনের প্রস্তুতি চলছে।

এ সমস্ত ভূয়া চিকিৎসক রোগী দেখে অতিরিক্ত ঔষধের নাম লেখে রিপ্রেজেন্টেটিভদের কাছ থেকে মোটা অংকের মাসোয়ারা পেয়ে আসছিল। এমনকি হাসপাতালে পরীক্ষার ব্যবস্থা থাকলেও বাহিরের ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে বিভিন্ন ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করিয়ে কমিশন এবং ক্লিনিকে রোগী পাঠিয়ে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নিতো। এছাড়াও বিভিন্ন ঔষধ কোম্পানীর প্রতিনিধিরা মেডিকেল হাসপাতালে প্রবেশ করে তাদের কাছে বসতো এবং বিভিন্ন উপঢৌকন প্রদান করতো।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য