দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলায় চলতি বন্যায় ফসলী জমির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বন্যায় ফসলের ক্ষতি হওয়ায় বাজারে লাফিয়ে বাড়ছে সব্জির দাম। উপজেলার হাট-বাজারগুলোতে সব্জির দাম প্রায় দ্বিগুন। কাহারোল উপজেলায় ৩টি ইউনিয়নের ৮০টি গ্রাম বন্যা কবলিত।

বন্যায় রোপা আমন ও সব্জি পানির নিচে তলিয়ে যাওয়ায় ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। তবে টাকার অর্থে ক্ষয় ক্ষতির পরিমাণ এখনো জানা যায়নি। কাহারোল উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ শামিম বলেন,উপজেলায় এই পর্যন্ত ৩ হাজার ৫শত ৫০ হেক্টর জমির রোপা আমন ধানের ক্ষতি হয়েছে। রোপা আমন, বীজতলা, শাক-সব্জি ও কলার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

কাহারোল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আসলাম মোল্লা গতকাল বলেন, কাহারোলের ৬টি ইউনিয়ন বন্যা কবলিত হয়েছে। এসব এলাকার ৮হাজার হেক্টর জমির আমন ও অন্যান্য আবাদ পানিতে নিমজ্জিত এবং ১ হাজার ৫ শত কাঁচা ঘর-বাড়ী ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা নিরূপনের কাজ চলছে।

এছাড়াও বন্যায় ৮০টি আশ্রয় কেন্দ্রে ব্যাপক ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে। বর্তমানে ত্রাণ তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে। দিনাজপুর -১ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য মনোরঞ্জনশীল গোপাল এম,পি বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন এবং তাৎক্ষণিক ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেছেন। ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত রেখেছেন তিনি।

উপজেলার ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলিকে পুনর্বাসনের জন্য সবরকম সহযোগীতা এবং আর্থিক সহযোগীতা প্রদান করেছেন ও তা অব্যাহত রেখেছেন। এদিকে ফসলী জমি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় কাহারোলে সব ধরণের সব্জির দাম বেড়ে গেছে। ১৫ টাকার পটল ৪০ টাকায়, ৩০টাকার করলা ৬০টাকা, ২০টাকার বেগুন ৫০ টাকায়, ৬০টাকার কাঁচামরিচ ১২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। গত কয়েকদিনের ব্যবধানে সব্জির দাম দ্বিগুণ হয়ে গেছে উপজেলার হাট-বাজার গুলোতে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য