সৈয়দপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে ফ্যানের সাথে পেচিয়ে আত্মহত্যা করেছে এক বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ছাত্র। গতকাল রাতে শহরের কাজিপাড়া এলাকায় এ আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, ওই এলাকার মরহুম সোহরাব তহশিলদারের ছোট স্ত্রীর ছেলে সামিউল ইসলাম রিফাত দিনাজপুরে থেকে সেখানে একটি কোচিং সেন্টার পরিচালনা করে। গত ১৫ আগস্ট সে দিনাজপুর থেকে সৈয়দপুর শহরের বাড়িতে আসে।

ওই রাতে সে তার থাকার ঘরের সেলিং ফ্যানের সাথে গলায় সুতি কাপড় পেচিয়ে আত্মহত্যা করে। কি কারণে সে আত্মহত্যা করেছে তা জানা যায়নি। তবে পরিবারের পক্ষ থেকে দাবি করা হচ্ছে বছর খানেক আগে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে মৃতের সাথে সিলেট জেলার এক মেয়ের সম্পর্ক গড়ে।

ঘটনার দিন গভীর রাত পর্যন্ত সে ফোনে কার সাথে যেন কথা বলছিল। ফোন ছাড়ার পর তার মন খারাপ লক্ষ্য করেছে পরিবারের লোকজন। রাতে সবাই ঘুমিয়ে পড়লে সেও তার রুমে ঘুমাতে যায়। পরদিন সকালে অনেক বেলার পরও সে যখন ঘুম থেকে উঠছে না তখন পরিবারের লোকজন তার দরজায় ধাক্কা ধাক্কি করে।

এক পর্যায় জানালার ফাঁক দিয়ে দেখতে পায় সে ফ্যানের সাথে ঝুলে আছে। পরে বিষয়টি পুলিশে খবর দেয়া হলে সৈয়দপুর থানা পুলিশ সেখানে গিয়ে লাশের সুরতহাল তৈরী করে থানায় নিয়ে আসে এবং লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নীলফামারী মর্গে পাঠায়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য