ফিলিপিন্সের পুলিশ মাদকবিরোধী এক অভিযানে একদিনের মধ্যে ৩২ জনকে হত্যা করেছে; একে দেশটির মাদকবিরোধী যুদ্ধে একদিনে সবচেয়ে বেশি লোকের মৃত্যুর ঘটনা বলে মনে করা হচ্ছে।

মঙ্গলবার রাজধানী ম্যানিলার উত্তরে বুলাকান প্রদেশে ২৪ ঘণ্টা ধরে এই অভিযান চলে বলে বিবিসি জানিয়েছে।

পুলিশ বলছে, নিহতরা প্রত্যেকেই সন্দেহভাজন মাদক অপরাধী, ঘটনার সময় তারা সশস্ত্র ছিল এবং পুলিশকে বাধা দিয়েছিল।

২০১৬ সালে প্রেসিডেন্ট রডরিগো দুতার্তের শুরু করা বিতর্কিত মাদকবিরোধী যুদ্ধে এ পর্যন্ত হাজারের মতো লোক নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

মাদক ব্যবসা নির্মূলে পরিচালিত এই অভিযানে নিহতের সংখ্যা নিয়ে বিশ্বজুড়েও তীব্র সমালোচনা আছে। দুতার্তের বিরুদ্ধে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডে অনুমোদন দেওয়ারও অভিযোগ উঠেছে।

আগের দিন মধ্যরাত থেকে শুরু করে মঙ্গলবার মধ্যরাত পর্যন্ত বুলাকানজুড়ে চলা অভিযানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী শতাধিক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার এবং অবৈধ মাদক ও অস্ত্র উদ্ধার করে বলে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলো জানিয়েছে।

বিবিসি বলছে, আন্তর্জাতিক মহলের সমালোচনা ছাড়াও এক রাতে এত বেশি মানুষের মৃত্যু এটাই প্রমাণ করে যে, দুতার্তের মাদকবিরোধী যুদ্ধ শেষ হওয়ার এখনো অনেক পথ বাকি।

গত মাসেও এক জনসভায় দুতার্তে মাদক ব্যবহারকারীদের উদ্দেশ্যে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছিলেন, তিনি তাদের খুঁজে বের করে ‘নরকের দরজায়’পাঠিয়ে দেবেন।

বিবিসির ম্যানিলা প্রতিবেদক জানান, বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড ছাড়া দুতের্তের মাদকবিরোধী যুদ্ধে অনেক ফিলিপিন্সবাসীরই সমর্থন দেখা যাচ্ছে।

ম্যানিলার অনেকেই বলছেন, তারা এখন আগের চেয়ে বেশি নিরাপদভাবে শহরজুড়ে চলাফেরা করতে পারেন।

অন্যদিকে মানবাধিকার গোষ্ঠীগুলোর অভিযোগ, ফিলিপিন্সের পুলিশ পূর্বপরিকল্পিতভাবে বিচারবহির্ভূত এসব হত্যাকাণ্ড ঘটাচ্ছে, যা কোনো কোনো ক্ষেত্রে তাদের জন্য লাভজনক হয়ে উঠছে।

সন্দেহভাজন অপরাধীরা অস্ত্রসহ বাধা দিলেই পুলিশ গুলি চালাচ্ছে, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর এই দাবি নিয়েও সন্দেহ তুলেছে তারা।

এসব কারণে চলতি বছরের জানুয়ারিতে দুতের্তে একবার মাদকবিরোধী অভিযান স্থগিতের ঘোষণা দিয়ে পুলিশের মাদকবিরোধী ইউনিটকে ঢেলে সাজানোর কথা বলেছিলেন। মার্চ থেকে অভিযানটি ফের শুরু হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য