ঘোড়াঘাট (দিনাজপুর) প্রতিনিধি দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে কয়েক দিনের টানা বর্ষণে ও উজান থেকে পানি আসায় প্রায় ৩০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। গো-খাদ্য ও জ্বালানি কাঠ-খরের সংকট দেখা দেয়েছে।

দুর্ভোগ বেড়েছে খেটে খাওয়া মানুষের। সিংড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল মান্নান মন্ডল জানান,টানা বর্ষণে ও পাহাড়ি ঢলে সিংড়া ইউনিয়নের নারায়নপুর,নুুরপুর,সিংড়া, রামপাড়া,ডাঙ্গা,মারুপাড়া,গোবিন্দপুর,ঘনকৃষ্ণপুর,গুয়াগছি, সাতপাড়া,ভর্নাপাড়া,মগলিশপুর,চাঁদপাড়া,শেখালিপাড়া,খায়রুল,বৈদড়,ঋষিঘাট,আবিবের পাড়া,শীধলগ্রাম,মিরেরচড়া গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

বুলাকীপুর ইউনিয়নের কলাবাড়ি,উত্তরদেবীপুর,শালিকাদহ,বুলাকীপুর,কইপাড়া, শ্রীচন্দ্রপুর, কুলানন্দপুর, পার্ব্বতীপুর, কৃষ্ণরামপুর, জয়রামপুর গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এ সব গ্রামের শতাধিক মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়েছে।করতোয়া ও মহিলা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। দেউলি ঘাটের কাট-বাঁশের সাঁকো স্রোতে ভেঙ্গে যাওয়ায় পলিঞ্চলের মানুষের উপজেলা সদর ও রানীগঞ্জ হাটে যাতায়াত ব্যবস্হা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।

বর্ষণে সংকট দেখা দেয়েছে গো-খাদ্য ও জ্বালানি কাট-খরের।ভেসে গেছে লালদহ,সারের দিঘী, ছয়ঘাটি, নয়নদিঘী সহ কয়েকটি পুকুড়ের মাছ।পানির নিচে প্রায় ৫ হাজার একর জমির আমন ধান। ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে কাঁচা ঘড়-বাড়ি। বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্টানের যাতায়াত সড়ক প্লাবিত হওয়ায় শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের চরম দুর্ভোগ পোয়াতে হচ্ছে।

ডুগডুগিহাট দ্বি-মুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র সহকারী শিক্ষক মোঃ সেলিম রেজা জানান, বিদ্যালয়ে যাতায়াতের সড়ক এক হাঁটু পানির নিচে ফলে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা কম।প্লাবিত এলাকার মানুষের জন্য মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে বলে জানান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার টিএম এ মমিন। প্লাবিত কয়েকটি গ্রাম পরিদর্শন করেছেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার টি এম এ মমিন ও ঘোড়াঘাট উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মোঃ আব্দুর রাফে খন্দকার সাহানশা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য