যুদ্ধবিধ্বস্ত ইয়েমেনে কলেরা আক্রান্তের সংখ্যা ৫ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। মাত্র চার মাসে এতো বিশাল সংখ্যক মানুষ কলেরায় আক্রান্ত হয়েছেন। সোমবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) এই তথ্য জানিয়েছে।

ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, চলতি বছরের এপ্রিল মাসের শেষ সপ্তাহ থেকেই পানিবাহিত কলেরা রোগের সংক্রমন শুরু হয়। এরপর থেকেই দ্রুত তা ছড়িয়ে পড়তে থাকে। এ পর্যন্ত ১ হাজার ৯৭৫ জন মানুষ কলেরা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

ডব্লিউএইচও জানায়, জুলাই মাসে কলেরা সংক্রমণের সংখ্যা ভয়াবহ আকার ধারণ করে। প্রতিদিন ৫ হাজার মানুষ কলেরায় আক্রান্ত হচ্ছেন। দূষিত পানি পান ও অস্বাস্থ্যকর পয়ঃনিষ্কাশনের কারণে কলেরা রোগ ছড়ায়।

যুদ্ধের কারণে ইয়েমেনের প্রায় দেড় কোটি মানুষ বিশুদ্ধ পানির সরবরাহ বঞ্চিত রয়েছেন। বড় বড় শহরগুলোতে বর্জ ব্যবস্থাপনাও স্থবির হয়ে পড়েছে।

কলেরা আক্রান্ত হওয়ার লক্ষ্মণ অনেক ক্ষেত্রে থাকে না বা থাকলেও বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই আক্রান্তের কয়েক ঘণ্টার মধ্যে চিকিৎসা না পেলে রোগীর মৃত্যু হয়।

কলেরার সংক্রমণ ঠেকাতে হিমশিম খাচ্ছে ইয়েমেনের স্বাস্থ্যসেবা কর্তৃপক্ষ। এই মুহূর্তে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি কলেরা আক্রান্তের সংখ্যা রয়েছে দেশটিতে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, ইয়েমেনে কলেরা রোগের ওষুধের স্বল্পতা রয়েছে। গত এক বছর ধরে ৩০ হাজার স্বাস্থ্যকর্মী কোনও বেতন পাচ্ছেন না। সংস্থাটির মহাপরিচালক ড. তেদ্রোস আধানম বলেন, ইয়েমেনের স্বাস্থ্যকর্মীরা অসম্ভব কঠিন পরিস্থিতিতে কাজ করছে। কয়েক লাখ মানুষ অসুস্থ। কিন্তু নেই পর্যাপ্ত হাসপাতাল, ওষুধ ও বিশুদ্ধ পানি। সূত্র: বিবিসি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য