আজিজুল ইসলাম বারী,লালমনিরহাট থেকে: লালমনিরহাটের সদর উপজেলায় নিরাপদ আশ্রয়ের সন্ধানে যাওয়ার সময় ধরলা নদীর পানিতে ডুবে নিখোঁজ পাঁচ জনের লাশ উদ্ধার করা করা হয়েছে। রবিবার (১৩ আগস্ট) সন্ধ্যায় একজন, সোমবার (১৪ আগস্ট) সকালে দুই জন, দুপুরে একজন এবং বিকালে অন্য একজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। লালমনিরহাট সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহফুজ আলম বাংলা ট্রিবিউনকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নিহতরা হলেন- কুলাঘাটের পূর্ব বরুয়া এলাকার রবিউল ইসলামের স্ত্রী নাজমা খাতুন (২২), তাদের ছেলে নাজিম হোসেন (৪), রবিউলের বোন জামাই মোজাম্মেল হোসেন (৪৫), মোজাম্মেল হোসেনের ছেলে আলিফ হোসেন (৭) এবং বড়বাড়ী ইউনিয়নের সাদেক নগর এলাকার আব্দুল মজিদের ছেলে মোতালেব হোসেন (১৮)।

ওসি মাহফুজ আলম বলেন, ‘সোমবার কুলাঘাটের পূর্ব বরুয়া থেকে নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে সদরে যাওয়ার পথে ধরলার পানিতে পাঁচ জন ডুবে যায়। ওইদিন সন্ধ্যায় নাজিম হোসেনের লাশ উদ্ধার করা হলেও অন্য চারজনের লাশ উদ্ধার করা যায়নি। পরে মঙ্গলবার সকালে দুই জন, দুপুরে একজন ও বিকালে অন্য একজনের লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহতদের পরিবারকে লাশ দাফনের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।’লালমনিরহাট জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মতিয়ার রহমান বলেন, ‘এবারের বন্যা ১৯৮৮ ও ১৯৯৮ সালের বন্যাকেও ছাড়িয়ে গেছে। পানিবন্দী অবস্থা থেকে নিরাপদ আশ্রয়ে যাওয়ার সময় ধরলার পানিতে ডুবে এই দুই শিশু, এক তরুণ, এক নারী ও এক পুরুষের মৃত্যু হয়েছে। নিহতদের পরিবারগুলোর খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে। তাদের আর্থিক সহযোগিতার জন্য জেলা প্রশাসনের বিশেষ নজর রয়েছে।’

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য