পাকিস্তানের বেলুচিস্তান প্রদেশের কোয়েটা শহরের একটি বাস স্টপের কাছে সামরিক ট্রাক লক্ষ্য করে চালানো আত্মঘাতী বোমা হামলায় আট সৈন্যসহ ১৫ জন নিহত হয়েছে।

শনিবারের এ ঘটনায় আরো ৪০ জন আহত হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় কর্মকর্তারা, খবর ডন অনলাইন ও বার্তা সংস্থা রয়টার্সের। আহতদের মধ্যে আটজনের অবস্থা সঙ্কটজনক।

হামলার পরপরই মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস) এর দায় স্বীকার করেছে।

তাদের একজন আত্মঘাতী মোটরসাইকেল আরোহীর চালানো হামলাটিতে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর ১৮ সদস্য নিহত হয়েছেন বলে এক বিবৃতিতে জঙ্গিগোষ্ঠীটি দাবি করেছে।

প্রাদেশিক স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী সরফরাজ বুগতি বলেন, আধাসামরিক বাহিনীর একটি টহল দল সড়ক দিয়ে যাওয়ার সময় হামলাটি চালানো হয়।নিরাপত্তা বাহিনীর ওই দলটি এ হামলার লক্ষ্য ছিল বলে ধারণার কথা জানান তিনি।

সরফরাজ বলেন, “এখন পর্যন্ত পাওয়া তথ্য অনুযায়ী ওই হামলায় ১৫ জনের মৃত্যু এবং কমপক্ষে ৪০ জনের আহত হওয়ার খরব জানতে পেরেছি আমরা।”

এ হামলার পর শহরে জরুরি অবস্থা জারির পাশাপাশি সব হাসপাতালকে ‘সতর্কাবস্থায়’ রাখা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

কোয়েটা শহরের বোমা নিস্ক্রিয়কারী শাখার প্রধান আসলাম তারিন ডনকে বলেন, “মোটর সাইকেল আরোহী এক ব্যক্তি সেনা ট্রাকটির কাছে এসে বিস্ফোরণ ঘটায়।”

হামলায় প্রায় ২৫ থেকে ৩০ কেজি বিস্ফোরক ব্যবহার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

নিহত ১৫ জনের মধ্যে আটজন সৈন্য ও সাতজন বেসামরিক নাগরিক বলে দেশটির সামরিক বাহিনীর জনসংযোগ দপ্তর জানিয়েছে।

পাকিস্তানের স্বাধীনতার ৭০ বছর পূর্তির অনুষ্ঠানকে বানচাল করাই এই হামলার উদ্দেশ্য বলে সেনা প্রধান কমর জাভেদ বাজওয়া মনে করছেন। ১৪ অগাস্ট পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবস।

প্রাকৃতিক গ্যাসে সমৃদ্ধ বেলুচিস্তানের সম্পদে প্রদেশটির আরও বেশি ভাগের দাবিতে বেশ কয়েকটি বিদ্রোহী সংগঠন কয়েক দশক ধরে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে সশস্ত্র আন্দোলন চালিয়ে আসছে।

এছাড়া আফগানিস্তান ও ইরানের সঙ্গে স্থল সীমান্ত থাকা প্রদেশটিতে তালেবান, আইএস ও আরও কয়েকটি ইসলামি জঙ্গি সংগঠনের কার্যক্রম রয়েছে।

স্বাধীনতা লাভের ৭০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠান উপলক্ষে পাকিস্তানের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ নগরীতে নেওয়া কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্যে প্রাদেশিক রাজধানী কোয়েটায় সর্বশেষ এই হামলার ঘটনা ঘটলো।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য