দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুরের বীরগঞ্জে নিখোঁজের ৪দিন পর জাতীয় উদ্যান সিংড়া শালবন থেকে তাপস রায় (১৫) নামে এক বালকের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

তাপস রায় উপজেলার ভোগনগর ইউনিয়নের চাউলিয়া গ্রামের শিমুল রায়ের ছেলে।

গতকাল মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টায় উপজেলার ভোগনগর ইউনিয়নের জাতীয় উদ্যান সিংড়া শালবনের গভীর জঙ্গল থেকে মৃতদেহটি উদ্ধার করে পুলিশ।

ভোগনগর ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত মহিলা আসনের সদস্য মোছাঃ লিপি আরা বেগম জানান, আজ বিকেল ৫টায় চাউলিয়া গ্রামের মৃত ধনু রায়ের ছেলে রতন রায় গরু খুজতে জাতীয় উদ্যান সিংড়া শালবনের গভীর জঙ্গলে যায়। জঙ্গলের ভিতরে দুর্গন্ধের উৎস খুজতে গিয়ে একটি ছেলে অর্ধ গলিত মৃতদেহ দেখ পায়। বিষয়টি তাৎক্ষণিক ভাবে আমাকে জানান। আমি স্থানীয় লোকজন সাথে নিয়ে ঘটনাস্থলে যাই। স্থানীয় লোকজন মৃতদেহটি নিখোঁজ তাপস রায়ের হতে পারে বলে ধারণা করলে আমার মোবাইলে ছবি তুলে তাপসের পরিবারকে সংবাদ দেই। একটি মোবাইল ফোন এবং খালি বিষের বোতল লাশের পাশে পড়ে থাকতে দেখা যায়। বিষয়টি তাৎক্ষণিক ভাবে বীরগঞ্জ থানাকে অবস্থিত করা হয়।

তাপস রায়ের বাবা শিমুল রায় জানান, গত শনিবার সকাল ৭টায় বাড়ী থেকে বেড়িয়ে যাবার পর আর ফিরে আসেনি আমার ছেলে তাপস রায়। তাকে সম্ভাব্য সকল স্থানে খোঁজ করে পাওয়া যায়নি। আজ বিকেল ৫টায় ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত মহিলা আসনের সদস্য মোছাঃ লিপি আরা বেগম মোইলে ফোনে জাতীয় উদ্যান সিংড়া শালবনের গভীর জঙ্গলে একটি মৃতদেহ পড়ে থাকার বিষয়টি আমাদেরকে জানান। পরে তার মোবাইলে তোলা ছবি দেখে নিশ্চিত হই এটি আমাদের তাপসের মৃতদেহ।

বীরগঞ্জ থানার এসআই আনোয়ারুল ইসলাম জানান, ঘটনাস্থলটি গভীর জঙ্গলের ভিতরে এবং অন্ধকার। মৃতদেহে কিছুটা পচন আসায় এবং লাশের পরনে শার্ট এবং পেন্ট থাকায় কোথাও আঘাতের চিহেৃর বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যায়নি। সুরতহাল শেষে লাশ মর্গে প্রেরণ করা হবে।

বীরগঞ্জ থানার ওসি আবু আককাছ আহমেদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজে প্রেরণের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। ময়না তদন্তে জানা যাবে এটি হত্যা না আত্মহত্যা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য