সংবাদ সম্মেলনঃ দিনাজপুর পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোঃ আকবর আলী অরেঞ্জকে ক্রসফায়ারে হত্যার হুমকী দিয়েছে কোতয়ালী থানার এসআই বিপ্লব কান্তি রায়।

রবিবার দিনাজপুর প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে উপরোক্ত অভিযোগ করেছেন পৌর কাউন্সিলর মোঃ আকবর আলী অরেঞ্জ এবং এলাকাবাসী। লিখিত অভিযোগে অরেঞ্জ বলেন,মাদকব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়ায় এসআই বিপ্লব দীর্ঘদিন ধরেই তাকে নানা ভাবে হয়রানী করছে।

চলতি বছর ২২এপ্রিল রাতে ফুলবাড়ি বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় এমন একটি ঘটনায় ৩জন মোটর শ্রমিককে মাদকব্যবসায়ী হিসেবে আটক করে এবং তাদের কাছে উৎকোচ দাবী করে তখন স্থানীয় জনতা ক্ষিপ্ত হয়ে প্রতিবাদ করলে এসআই বিপ্লব থানায় সংবাদ দিয়ে অতিরিক্ত পুলিশ এনে তাকেসহ ওই ৩জনকে শ্রমিককে থানায় নিয়ে যায়।

পরবর্তীতে শ্রমিক আন্দোলনের ভয়ে মোটর পরিবহন শ্রমিক ৩জনকে ছেড়ে দিলেও পুলিশ কর্মকর্তার উপর হামলার অভিযোগে কাউন্সিলর অরেঞ্জকে পুলিশ আদালতে সোর্পদ করে।আদালত পরবর্তীতে পুলিশের রিমান্ড আবেদন নামঞ্জুর করে কাউন্সিলর অরেঞ্জকে জামিনে মুক্তি দেন।

লিখিত অভিযোগে বলা হয়েছে, ক্ষিপ্ত এসআই বিপ্লব কান্তি রায় তখন থেকেই প্রতিশোধ পরায়ন হয়ে নানান ভাবে কাউন্সিলর অরেঞ্জকে ফাঁসানের জন্যে চেষ্টা তদবির করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় গত ৩১ জুলাই কমিউনিটি পুলিশিং এর নামে এলাকার ২০-২৫জন মানুষকে ডেকে নিয়ে গিয়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে মিথ্যা স্বাক্ষী তৈরীর চেষ্টা করেছেন এবং একটি বানোয়াট অভিযোগ নামায় ৮জনের স্বাক্ষর করে নিয়েছে।

তিনি জানান, মাদকব্যবসায়ী হিরা ও তার মাকে এলাকা থেকে উচ্ছেদের জন্যে আমরা এলাকাবাসীর গনস্বাক্ষরসহ এসপি অফিসে আবেদন করেছি অথচ এজন্যেই ক্ষিপ্ত হয়ে মাদকব্যবসায়ীদের সহযোগীতাকারী এসআই বিপ্লব কান্তি রায় গত ২ আগষ্ট রাত ৯টায় পুলিশ পিকআপে সঙ্গীয় ফোর্সসহ ফুলবাড়ি বাসষ্ট্যান্ডে আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে এসে বলেন,আগেরবার বেঁচে গিয়েছিস এবার ক্রসফায়ারের জন্যে তৈরী থাকো। আমরা জনগনের প্রতিনিধি হয়েও মানুষের সেবাপ্রদানের পরিবর্তে এখন আতংকিত জীবন যাপন করছি।

সংবাদ সম্মেলনে দাবী করা হয়,জননিরাপত্তার স্বার্থে নির্যাতন ও হত্যার হুমকী প্রদাকারী বিপ্লব কান্তি রায়ের অপতৎপরতারোধে পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তার কঠোর ব্যবস্থা নেবেন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন,মোঃ রিয়াজুল ইসলাম, সিদ্দিক হোসেন,পিয়ার আলী,সিরাজুল ইসলাম ও মুজাম উদ্দীন প্রমুখ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য