বোচাগঞ্জ (দিনাজপুর) সংবাদাতাঃ সেতাবগঞ্জ পৌর শহরের ভড়রা তালতলী গ্রামের বাসিন্দা এক সময়ের মক্ষিরানী দুশ্চরিত্রা রেমিনা বেগম ওরফে চশমাওয়ালীর হয়রানী মুলক মামলা থেকে অব্যাহতি চেয়ে গতকাল ৫ আগষ্ট শনিবার বিকেলে বোচাগঞ্জ উপজেলা প্রেসক্লাবে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করেছে একই গ্রামের বাসিন্দা মোঃ আলী হোসেন।

সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে মোঃ আলী হোসেন জানান, রেমিনা বেগম ওরফে চশমাওয়ালীর বাসায় প্রতিদিন সন্ধায় অপরিচিত ও বহিরাগত মানুষ প্রায় আসা যাওয়া করতো। যে কারণে গ্রাম বাসীর মাঝে সন্দেহ দেখা দেয় রেমিনা বেগম তার বাসায় অসামাজিক কার্যকলাপ চালিয়ে আসছে। সেই সন্দেহ অনুযায়ী গত ১৪/০৭/২০১২ ইং তারিখে রেমিনা বেগম তার বাসায় অসামাজিক কার্যকলাপ করা কালীন সময়ে এলাকাবাসী কর্তৃক হাতে নাতে ধরা পরে এবং স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কাছে রেমিনা ভূল স্বীকার করে মুচলেকা দেয় ভবিষ্যতে সে আর কোন অসামাজিক কাজে লিপ্ত হবেনা।

তার পরও সে অসামাজিক কার্যকলাপ অব্যাহত রাখে। যার কারণে গত ৯-৪-২০১৭ ইং তারিখ সন্ধায় এলাকাবাসীর পক্ষে আলী হোসেন, আকিমউদ্দীন, আফিজুল, অজিফা, মোমেনা, রওশন আরা সহ বেশ কয়েকজন গ্রামবাসী রেমিনা বেগমকে এলাকার মধ্যে এসব অসামাজিক কাজ বন্ধ করার জন্য মুখিক হুশিয়ারী দেয়। যে কারণে রেমিনা বেগম ক্ষিপ্ত হয়ে নিজের চুল নিজেই কেটে আমাদের বিরুদ্ধে গত ১৯-০৪-২০১৭ ইং তারিখে দিনাজপুর আদালতে একটি মামলা দায়ের করে এবং গত ৪ আগষ্ট শুক্রবার বোচাগঞ্জ উপজেলা প্রেসক্লাবে আমাদের শাস্তি দাবী করে সংবাদ সম্মেলন করে।

এছাড়াও রেমিনা বেগম লোক মারফত আমাদেরকে জানায় আমার কাজে বাধা সৃষ্টি না করলে এবং আমাকে নগদ ৫০হাজার দিলে আমি আসামীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা তুলে নেবে। আলী হোসেন পাল্টা সংবাদ সম্মেলনে জানান, রেমিনা বেগম আদালতে যাদের নাম উল্লেখ করে আসামী করেছেন এবং সংবাদ সম্মেলনে যাদের শাস্তি দাবী করেছেন তারা এধরনের কোন কাজ করেনি।

আলী হোসেন জানান আমরা পাল্টা সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে রেমিনা বেগমের মামলার সঠিক তদন্তেও পাশাপাশি চশামাওয়ালীকে আইনের আওতায় এনে ঐ এলাকার সামাজিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনার জন্য পুলিশ প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করছি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য