দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে পানি নিষ্কাশনের ড্রেন বন্ধ করে দিয়ে পুকুর খনন করে মাছ চাষ করায় উপজেলার ৯নং কুশদহ ইউনিয়নের চারটি মৌজার ১’হাজার বিঘা আমন, রোপা জমি পানির নিচে নিমজ্জিত রয়েছে। এর কারণে এলাকার হাজার হাজার চাষীরা পানি নিষ্কাশনের সু-বিচার চেয়ে প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে আবেদন করেও সুফল পাচ্ছে না। যার কারণে প্রতিদিন পানি নিষ্কাশনের জন্য এলাকার একটি প্রভাবশালী মহলের সাথে সাধারণ কৃষকদের বাক-বিতন্ডা লেগেই আছে।

কৃষক মোখলেছুর রহমান অভিযোগ করে জানান- ওই ইউনিয়নের খালিপপুর, রহিমাপুর, হেয়াতপুর ও শিবপুর মৌজার মোরলাই বিল সংলগ্ন নিচু জমি বৃষ্টির পানিতে ছয়লাভ হয়ে যায়। যার কারণে তারা আমন ধান রোপন করতে পারছে না। এদিকে একই ইউনিয়নের সৈনিকপাড়া গ্রামের প্রভাবশালী একরামুল হক পানি নিষ্কাশনের ডেন বন্ধ করে তৈরি করেছে পুকুর। আর ওই পুকুরেই চাষ করছে মাছ। পানি নিষ্কাশন সহ সু-বিচার চেয়ে কৃষকেরা গণ স্বাক্ষরিত অভিযোগ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে দাখিল করেছে।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আবু রেজা মোঃ আসাদুজ্জামানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান- জমিতে পানি বন্দি থাকায় রোপা আমন লাগাতে পারছে না কৃষক। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশে তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে পানি নিষ্কাশনের জন্য ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিলেও একরামুল তা অমান্য করেছে। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) মৌসুমী আফরিদার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জলাবদ্ধতার কথা স্বীকার করে জানান- বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য