আনোয়ার হোসেন আকাশ, রানীশংকৈল থেকেঃ ঠাকুরগায়ের রানীশংকৈল হাসপাতালের প্যাথলজী বিভাগের রুমে মঙ্গলবার(১আগষ্ট) প্রবেশ করতেই দেখা যায় দুটি পালসার মোটরসাইকেল রুমের ভিতরে পাকিং করা। পাশেই আবার পরীক্ষার জন্য ছোট একটি শিশুর রক্ত নিচ্ছেন ল্যাবহকারী আকতার।

অসুস্থ রোগীদের বিভিন্ন পরীক্ষার এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ রুমে মোটরাসইকেলের পাকিং কেন প্রশ্নে দায়িত্বরত ল্যাব সহকারী আকতার হোসেন বলেন, পেশাগত কাজে ব্যস্ত থাকতে হয় অন্য কোথাও মোটরসাইকেল রাখলে চুরি হয়ে যাওয়ার সম্ভবনার চিন্তা থেকেই কর্মস্থলে মোটরসাইকেল ২টি পার্র্কিং করা হয়েছে। ইতিমধ্যে আমাদের স্টাফদের মোটরসাইকেল হাসপাতাল থেকে চুরি হয়ে গেছে।

যদিও থানা কার্যালয় ও হাসপাতাল সড়কের এপার আর ওপারে অবস্থিত। আকতার আরো বলেন,মোটরসাইকেলের অন্য কোন জায়গায় নিরাপত্তা নেই। নিরাপত্তার কারনেই চোখের সামনেই মোটরসাইকেলগুলি রাখা হয়েছে। প্যাথলজী বিভাগে পরীক্ষা করতে আসা রোগীর অভিভাবক আসমা বলেন,প্যাথলজী বিভাগটি এমনিতেই নোংরা অবস্থায় থাকতে প্রায় দেখা যায়,আবার ঐ রুমেই ২টি মটর সাইকেল রাখায় রোগীদের চলা ফেরায় চরম দূভোগের স্বীকার হতে হচ্ছে প্রতিনিয়ত ।

এছাড়াও মোটরসাইকেলের টায়ারে করে বিভিন্ন জীবানু প্যাথলজী বিভাগে সংক্রমন হচ্ছে বলে মনে করেন রোগীর স্বজনরা। এ বিষয়ে প্যাথলজী বিভাগের ইনর্চাজ দেলোয়ার হোসেন বলেন,ভাই কালকে থেকে রাখবে না। কেন রেখেছিলেন প্রশ্নে বলেন নতুন বিয়ে করেছে আমার স্টাফরা নতুন মোটরসাইকেল তাই নিরাপত্তার জন্য। কারন অহরহ মোটরসাইকেল চুরি হচ্ছে হাসপাতাল থেকে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য