নীলফামারীর ডোমার উপজেলায় পিতা ও পুত্রের কলহে মা যমুনা রানী (৫৫) গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। গতকাল বুধবার রাতের কোন এক সময জেলার ডোমার উপজেলার বোড়াগাড়ি ইউনিয়নের নওদাবস গ্রামের শরৎ চন্দ্র রায় কান্দুরা’র স্ত্রী নিজ ঘরের আড়ার সাথে গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যা করে।

আজ বৃহস্পতিবার দুুপরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য জেলার মর্গে পাঠিয়েছে। পারিবারের সদস্যদের বরাত দিয়ে বোড়াগাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান তোফায়েল আহমেদ জানান, বুধবার দুপুরে বাড়ির বাচ্চাদের খেলা নিয়ে পিতা কান্দুরা ও তার ছেলে কালিপদ রায়ের মধ্যে কলহ বাধে।

ওই কলহে পরিবারের সকলে জড়িয়ে পড়ে। যমুনা রানী পরিবারে সবাইকে কলহ থামাতে বার বার নিষেধ করার পড়েও কলহ থামে না। এরই একপর্যায়ে রাত ১০ টার সময় যমুনা ঘরের দরজা বন্ধ করে নিজ ঘরের স্বরে গলায় রশি ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে।

পরে যমুনা রানীকে ডাকাডাকি করে সাড়া না পেলে পরিবারের সদস্যরা দরজা ধাক্কা দিয়ে দেখে তার ঝুলন্ত লাশ। ডোমার থানার অফিসার্স ইনচার্জ ইব্রাহীম খলিল জানান, বৃহস্পতিবার লাশ উদ্ধার করে জেলার মর্গে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য