ভারতের মুম্বাইয়ের শহরতলীর ঘাটকোপার এলাকায় চারতলা একটি ভবন ধসে এক নাবালকসহ ১৭ জন নিহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার সকালের এই ঘটনায় ভবনটির মালিক শিবসেনা নেতা সুনিল শিতাপকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যম।

এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ঘাটকোপারের দামোদার পার্ক এলাকার ভবনটির নিচতলায় সংস্কার কাজ করার সময় সেটি ধসে পড়ে। এ ঘটনায় সুনিল শিতাপের বিরুদ্ধে দায়িত্বে অবহেলা ও অনিচ্ছাকৃত হত্যাকাণ্ডের অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

ওই ভবনের নিচতলায় একটি নার্সিং হোম ছিল, সেখানে সংস্কার কাজ চলছিল। এছাড়া ভবনটিতে আরো ১২টি পরিবার বসবাস করতো বলে জানিয়েছে পুলিশ।

পৌরসভার কংগ্রেসদলীয় সাবেক জনপ্রতিনিধি প্রাভিন চেড্ডা জানিয়েছেন, সুনিল শিতাপ ও স্বাতি সুনিল শিতাপ মিলে নার্সিং হোমটি পরিচালনা করতেন।

“গত দুই মাস ধরে নার্সিং হোমটি বন্ধ ছিল। সুনিল এটিকে গেস্টহাউসে রূপান্তর করতে চাইছিল,” বলেন চেড্ডা।

চলতি বছরের প্রথমদিকে শিবসেনার প্রার্থী হিসেবে স্বাতি সুনিল শিতাপ বৃহানমুম্বাই পৌরসভার (বিএমসি) নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন।

মঙ্গলবার রাতে মহারাষ্ট্র রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফাডনাবিস দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ঘটনা তদন্তের নির্দেশ দেন।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার সকাল ১০টা ৪৩ মিনিটে তাদের কাছে ভবন ধসের খবর আসে বলে জানিয়েছিলেন মুম্বাই দমকলের প্রধান কর্মকর্তা প্রভাত রাহাঙ্গডালে। ভবনটির ধ্বংসস্তূপের নিচে বহু লোক চাপা পড়ে আছে বলে জানিয়েছিলেন তিনি।

দমকলের উদ্ধারকর্মীরা ও স্থানীয় লোকজন মিলে উদ্ধারকাজ শুরু করে পরবর্তী কয়েক ঘন্টায় ভবনটির ধ্বংসস্তূপের নিচ থেকে প্রায় ২৮ জনকে উদ্ধার করে। উদ্ধার অভিযান চলার সময় দুই দমকল কর্মী আহত হয়।

মুম্বাইয়ের মেয়র শিবসেনার অপর নেতা মহাদেশ্বর এ ঘটনার জন্য দায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

মুম্বাইয়ে বর্ষাকালে প্রায়ই ভবন ধসের ঘটনা ঘটে। গত বছরের অগাস্টে শহরতলীর অপর একটি অংশে দুই তলা একটি ভবনের একটি অংশ ধসে পড়ে আটজন নিহত হয়েছিল। অক্টোবরে বান্দ্রায় পাঁচতলা একটি ভবন ধসে ছয়টি শিশু নিহত হয়েছিল।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য