আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা থেকেঃ গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে পারিবারিক ও সমাজিক বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের লাঠির আঘাতে গুরুতর জখমী এনামুল হক (৩০) চিকিৎসাধীন অবস্থায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান।

ঘটনাটি ঘটেছে, উপজেলার বরিশাল ইউনিয়নের আমলাগাছী গ্রামে গোলজার হোসেন গংদের সাথে একই গ্রামের নুরু মন্ডল গংদের সাথে পূর্ব শত্র“তার জেরে বিরোধ চলে আসছিল। এরই ধারাবাহিকতায় ঘটনার দিন গত ১৪ জুলাই গোলজার রহমানের একটি গরু নুরু মন্ডলের গাছের বাগানে যায়। গরু গাছের বাগানে যাওয়াকে কেন্দ্র করে তারা গোলজারকে মারপিট করলে এনামুল আগাইয়া গেলে সেখানে তাদের সঙ্গে কথা কাটাকাটির সৃষ্টি হয়।

এক পর্যায়ে ওই দিন দুপুর ২টার দিকে এনামুল বাদ জুম্মা মসজিদে নামাজ শেষে বাড়ীতে ফেরার পথে নুরু মন্ডলের ছেলে ফেরদৌস ও জামাই রাসেলসহ আরো অন্যান্যরা তার পথরোধ করে লাঠি সোডা লোহার রড দ্বারা তার মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারডাং করিয়া গুরুতর জখম করে। গুরুতর আহত অবস্থায় এনামুলকে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ১৫ জুলাই রাতে জখমী এনামুলের মৃত্যু হয়। এ ব্যাপার এনামুলের জ্যাঠা গোলজার রহমান বাদী হয়ে এজাহার নামীয় ৬ জন ও অজ্ঞাত আরো ২/৩ জনকে আসামী করে পলাশবাড়ী থানায় একটি মামলা (নং-১৮) দায়ের করেন।

ঘটনার দিন থানা পুলিশ নুরু মন্ডলের ছেলে ফেরদৌস মিয়া (২৬) ও জামাই রাসেল বিশ্বাস (৩২) আটক করে। পরে তাদের জেল হাজতে প্রেরণ করেন। থানার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আব্দুর রউফ বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ঘটনাদিনই দুইজন আসামীকে আটক করা হয়েছে বাকী আসামীদের আটকের চেষ্টা চলছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য