উন্নয়নশীল দেশগুলোতে পরিবার পরিকল্পনায় আরও অনুদান দেওয়ার অঙ্গীকার করেছে ডেনমার্ক; এর ফলে ইউরোপে অভিবাসনের চাপ কমে আসবে বলেও ধারণা দেশটির।

বিবিসি জানিয়েছে, বুধবার রাজধানী কোপেনহেগেনে এক সংবাদ সম্মেলনে দেশটির উন্নয়ন সহযোগিতা বিষয়ক মন্ত্রী উলা তরনেস এই কর্মসূচিতে ৯১ মিলিয়ন ক্রোনার (১ কোটি ৪০ লাখ ডলার) দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

তরনেস বলেছেন, অবাঞ্ছিত গর্ভধারণ বিশ্বের দরিদ্র দেশগুলোর জন্য ‘বড় ধরনের’ মানবিক ও সামাজিক ব্যায়ের কারণ হয়।

আফ্রিকার জনসংখ্যা বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণ করাও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মন্তব্য করেন তিনি।

মঙ্গলবার লন্ডনে এক সম্মেলনে তরনেস বলেছেন, বিশ্বের দরিদ্রতম দেশগুলোর অন্তত ২২ কোটি ৫০ লাখ নারী এখনো পরিবার পরিকল্পনার আওতার বাইরে।

বিশেষভাবে আফ্রিকার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, মহাদেশটির জনসংখ্যা বৃদ্ধি কমাতে গর্ভনিরোধ প্রকল্প ও পরিবার পরিকল্পনার সুযোগ বাড়ানো ডেনিশ সরকারের বিদেশ ও নিরাপত্তা নীতিতে গুরুত্ব পাচ্ছে।

“আফ্রিকার জনসংখ্যা যদি এ হারে বাড়তে থাকে, তাহলে এখনকার ১২০ কোটি লোক ২০৫০ সালে দ্বিগুণ হয়ে আড়াইশ কোটিতে পৌঁছাবে।

“ইউরোপে অভিবাসনের চাপ কমাতে সমাধানের অংশ হিসেবে আফ্রিকার অনেক দেশের জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার কমানো প্রয়োজন,” বলেন তরনেস।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ইউরোপের অন্যান্য দেশের মতো ডেনমার্কেও অভিবাসী ও শরণার্থীর চাপ বেড়েছে। তবে ২০১৫ সালের তুলনায় গতবছর দেশটিতে শরণার্থী আবেদনকারীর সংখ্যা হ্রাস পেয়েছে।

ডেনিশ সরকার জানিয়েছে, গত বছর অক্টোবর পর্যন্ত তারা শরণার্থীদের সাড়ে পাঁচ হাজার আবেদন পেয়েছেন; ২০১৫-র একইসময়ে যে সংখ্যা ছিল প্রায় ২১ হাজার।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য