আজিজুল ইসলাম বারী,লালমনিরহাট থেকে: বে-সরকারী শিক্ষক কর্মচারীদের বেতনের ১০ শতাংশ কর্তনের সিদ্ধান্ত বাতিল ও ৫শতাংশ বার্ষিক ইনক্রিমেন্ট প্রদান, বর্তমান স্কেলে চিকিৎসা ভাতা, বাড়ী ভাড়া, পূর্নাঙ্গ উৎসব ভাতা ও বৈশাখী ভাতা প্রদান ও শিক্ষাকে জাতীয়করনের দাবীতে লালমনিরহাটে মানব বন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ পালিত হয়েছে।

বুধবার দুপুর দিকে জেলার প্রানকেন্দ্র মিশনমোড়ে বাংলাদেশ কলেজ শিক্ষক সমিতি (বাকশিস) লালমনিরহাট জেলা শাখার আয়োজনে এ মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

বাংলাদেশ কলেজ শিক্ষক সমিতি (বাকশিস) লালমনিরহাট জেলা শাখার আহবায়ক মোফাজ্জল হোসেনের সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, সহকারী অধ্যাপক নজরুল ইসলাম সরকার, অধ্যক্ষ রবিউল ইসলাম মানিক, অধ্যক্ষ এন্তাজুর রহমান, সহকারী অধ্যাপক শাহিনুর ইসলাম পাটোয়ারী, সহকারী অধ্যাপক আবু হাসনাত রানা, সহকারী অধ্যাপক শফিকুল ইসলাম প্রমূখ।বক্তারা বর্তমান সরকারের ভাবমুর্তি যেন ক্ষুন্ন না হয় সেদিকে নজর রাখা প্রয়োজন।

দেশে যদি এরকম রাবিস-খবিস শিক্ষামন্ত্রী থাকে, তাহলে শিক্ষার মানন্নয়নতো দুরের কথা। দেশে শিক্ষা ব্যবস্থার ১২টা বেজে যাবে। তারা বলেন, এই শেখ হাসিনার সরকার বলেছিল যে তারা ক্ষমতায় গেলে সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে জাতীয়করন করা হবে। তাহলে কেন আজ আমরা রাজপথে, এই মূহুর্তে আমরা থাকবো ক্লাসে। তা না করে আজ আমাদের দাবী আদায়ের জন্য রাজপথে থাকতে হচ্ছে।

প্রতিবাদ সমাবেশে সভাপতি মোফাজ্জল হোসেন বলেন, বর্তমানে দেশে ৯৭ ভাগ বে-সরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আছে, যারা চিকিৎসা ভাতা, বাড়ী ভাড়া, পূর্নাঙ্গ উৎসব ভাতা ও বৈশাখী ভাতা পায়না। তিনি আরও বলেন, হয় ৫ভাগ ইনক্রিমেন্ট ভাতা বাতিল করেন নতুরা প্রবৃদ্ধি ভাতা প্রদান করা হোক।

তিনি বলেন, এ মাসের মধ্যে তাদের দাবী মেনে না নেয়া হলে আগামীতে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে শিক্ষকদের দাবী আদায়ে একাত্বতা ঘোষনা করে লালমনিরহাট জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ্যাড. মতিয়ার রহমান মানববন্ধনে অংশ গ্রহন করে তাদের দাবী বাস্তবায়নের আশ্বাস প্রদান করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য