উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে কুড়িগ্রামের চিলমারী ব্রহ্মপুত্র নদে পানি বৃদ্ধি পেয়ে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়ে ৩০ হাজার মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়েছে।

চিলমারী পাউবো জানায়, গত ১২ ঘন্টায় ৬ সেঃ মিঃ পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদ সীমার ৮ সেঃমিঃ উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ হুমকির মুখে রয়েছে। উপজেলার গয়নার পটল,বৈলমণদিয়ার খাতা,মুদাফৎকালিকাপুর,বজরাদিয়ারখাতা,ঘোরার কুটি,তেলী পাড়া,ছাল্লি পাড়া, দিঘল কান্দি,মনতলা, কড়াই বরিশাল,টোন গ্রাম, গুড়াতি পাড়া, মাঝি পাড়া,বাসন্তির গ্রাম, রাজার ভিটা, হাটিথানা, পুটিমারী, হাটিথানা ভট্ট পাড়া, কাচকোল এলাকার ৩০ হাজার মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়েছে।

পানি বন্দি মানুষের অনেকের ঘরে কোমর পরিমান পানি এবং কারো ঘরে হাঁটু পরিমান পানি রয়েছে। তারা উঁচু মাচা পেতে এবং কেউবা উঁচু স্থানে আশ্রয় নিয়ে খোলা আকাশের নিচে অনাহারে অর্ধাহারে দিনাতিপাত করছে। বর্নাত মানুষের জন্য ২ শত পরিবারের মাঝে শুকনা খাবার হিসাবে চিড়া, গুড়, দিয়াশলাই,খাবার স্যালাইন ও তেল বিতরন করা হয়েছে বলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মির্জা মুরাদ হাসান বেগ জানান।

তিনি আরো জানান সরকারী ভাবে এপর্যন্ত ১৫ মেঃ টন চাউল বরাদ্দ পাওয়া গেছে। প্রয়োজন অনুযায়ী বরাদ্দ অব্যহত থাকবে। কুড়িগ্রাম পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী জানান, পানি বৃদ্ধি পেলে মাটির বাঁধ সচারচর হুমকির মুখে পড়ে। যাতে বাঁধের কোন ক্ষতি না হয় এজন্য আমাদের নিবিড় পর্যবেক্ষন রয়েছে এবং ব্যবস্থা গ্রহনের প্রস্তুতি রয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য