birolবিরলে আইনের তোয়াক্কা না করে ভূমি দস্যুরা কবলাকৃত জমি দখলের অপচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। অভিযোগের পর অভিযোগ করেও কোন ফল না পেয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন ভূমির মালিক। সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান এবং থানা কর্তৃপক্ষ নামমাত্র নোটিশ জারী করেই তাদের দায়িত্ব পালন সম্পন্ন করেছেন।

প্রাপ্ত অভিযোগে জানা যায়, দিনাজপুরের বিরল উপজেলার ফরাক্কাবাদ গ্রামের আবু সাঈদ মোহাম্মদ হেনার পুত্র মোঃ ইমরান কবির রাসেল দানপত্র দলিলমূলে (নং ১৫৮৪/১৩) ফরাক্কাবাদ মৌজার জে এল নং ১৪২, খতিয়ান নং ৫২৬, দাগ নং ১৩৩৫ এর ৩৬ শতক এবং দাগ নং ১৩৩৮ এর ৯৬ শতক সর্বমোট ১ একর ৩২ শতক জমির মালিক হন। মালিক হওয়ার পর থেকে তিনি এই জমি ভোগ দখল করে আসছেন।

গত ১৩-০২-১৪ তারিখে তিনি চাষাবাদ করার জন্য ওই জমিতে লোক প্রেরণ করেন। কিন্তু বিরল উপজেলার ফরাক্কাবাদ মাঝাপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুল বাসেতের পুত্র রফিকুল ইসলাম, মেহেদী হাসান ও আবুল হাসান এবং মৃত বসির শাহ এর পুত্র আবু বক্কর সিদ্দিক উক্ত জমি তাদের বলে ভূয়াভাবে দাবী করে চাষাবাদের জন্য প্রেরিত লোকদের বিতাড়িত করে। উক্ত জমিতে ভবিষ্যতে প্রবেশের চেষ্টা করলে খুন জখম করবে বলে তারা হুমকী প্রদান করে।

এ ব্যাপারে ইমরান কবির রাসেল ফরাক্কাবাদ ইউনিয়র পরিষদ চেয়ারম্যান বরাবর দরখাস্ত করেন। ইউপি চেয়ারমম্যান বিবাদীদের নোটিশ দিয়ে ইউপি কার্যালয়ে হাজির হতে বলেন। কিন্তু তারা হাজির হননি। বাধ্য হয়ে ইমরান কবির রাসেল চলতি বছরের ৯ মার্চ তারিখে বিরল থানায় একটি সাধারণ ডাযেরী করেন। যার নং ৩২৭। থানার এএসআই মোঃ রেজাউল আলম ওই দিনই এ ব্যাপারে প্রতিপক্ষের কাছে ১৫৪ ধারা মতে একটি নোটিশ প্রেরণ করেন। নোটিশে তফশীল বর্ণিত জমিতে শান্তি শৃংখলা বজায় রেখে আদালতের মাধ্যমে বিষয়টি নিষ্পত্তি করার জন্য বলা হয়। অন্যথায় আইন ভঙ্গকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে জানানো হয়।

কিন্তু ওই নির্দেশনাও প্রতিপক্ষ গ্রাহ্যের মধ্যে আনেনি। এর প্রমাণ হলো, গত ২৪ মার্চ ১৪ তারিখে ইমরান কবির রাসেলের আধিয়ার মোঃ মজির উদ্দীন উপরোক্ত জমিতে সার দিতে গেলে প্রতিপক্ষ গ্রুপের লোকজন তাকে জমি হতে বিতাড়িত করে দেয়। সার্বিক পরিস্থিতিতে রাসেল এখন দিশেহারা অবস্থায়। তিনি এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সর্বাত্মক সহায়তা কামনা করেছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য