বিরলের পল্লীতে জমি-জমার বিরোধের জের ধরে মারপিটে ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগের নেতাসহ গুরুতর আহত হয়েছে ২জন। আহত স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতার অবস্থা আশংকাজনক বলে জানিয়েছে চিকিৎসক। ঘটনায় থানায় এজাহার দায়ের হয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলার রাজারামপুর ইউপি’র আজিমপুর গ্রামের মৃত গোপেন্দ্রনাথ রায়ের পুত্র ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক রিগেন্দ্রনাথ রায় (৩৫) কে বাড়ীর পার্শ্বে একা পেয়ে গত ৬জুলাই বৃহস্পতিবার দুপুরে একই গ্রামের মৃত কার্তিক চন্দ্র রায়ের পুত্র কমল চন্দ্র রায় (৪৫), অজিত চন্দ্র রায় ওরফে দুলু (৪২), সুদীপ্ত চন্দ্র রায় (৩৫), নৃপেন চন্দ্র রায় (৩৭) ও দিনেশ চন্দ্র রায়ের পুত্র চন্দন কুমার রায় (৩৮)গণ দেশীয় অস্ত্রে সজ্জ্বিত হয়ে পরস্পর যোগসাজসে পূর্বপরিকল্পিতভাবে হামলা চালায়।

মারপিটে গুরুতর আহত রিগেন্দ্রনাথের চিৎকারে তাঁর মা পারুল বালা এগিয়ে আসলে তাঁকেও মারপিট করে লাশ বানিয়ে দেয়ার হুকুম দেয় কমল চন্দ্র। এসময় প্রতিবেশী রামানন্দ, নারায়ণ চন্দ্র, ক্যাপ্টেন চন্দ্র, ননি গোপালসহ অনেকে এগিয়ে আসলে প্রতিপক্ষরা রিগেন্দ্রনাথ ও তাঁর পরিবারের লোকজনকে খুন, জখম, লাশগুমসহ বিভিন্ন প্রকারের হুমকি দিয়ে পালিয়ে যায়। প্রতিবেশীরা মূমুর্ষূ অবস্থায় গুরুতর আহত রিগেন্দ্রনাথকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।

রিগেন্দ্রনাথ রায়ের পরিবারের লোকজন শুক্রবার স্থানীয় সাংসদ বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরীর সাথে উপজেলা আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যালয়ে সাক্ষাত করলে তিনি ঘটনার সূষ্ঠ তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস প্রদান করেন। রিগেন্দ্রনাথ রায়ের কাকা সঞ্জিব কুমার রায় বাদী হয়ে উল্লেখিতদের বিরুদ্ধে বিরল থানায় একটি এজাহার দায়ের করেছেন।

শনিবার বিকালে মুঠোফোনে থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল মজিদ এজাহার পেয়েছেন জানিয়ে বলেন, তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য