আনোয়ার হোসেন আকাশ, রানীশংকৈল থেকেঃ ৬ জুলাই স্কুলের পাশের পথ দিয়েই যাচ্ছিলেন মহিলা ভাইসচেয়ারম্যান মাহফুজা বেগম পুতুল এসময় তিনি দেখেন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ক্লাশ সময়ে খেলাধুলা করছেন সময় তখন সাড়ে নয়টা এ দেখে তিনি ঢুকে পড়েন স্কুলে। গিয়ে দেখেন স্কুলে অফিস সহকারী ছাড়া কেউ নেই। শিক্ষকরা কই প্রশ্নে বলেন স্যাররা এখনও আসেনি তাই শিক্ষার্থীরা খেলাধুলা করছে। এ স্কুলটি হলো ঠাকুরগায়ের রানীশংকৈল উপজেলার ৪ নং লেহেম্বা ইউপির চাপোড়-পার্বতীপু সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়।

এ স্কুলের প্রধান শিক্ষক আশরাফুল ইসলাম তিনি নিয়মিতভাবেই সময় বিলম্বে স্কুলে যান বলে অভিযোগ উঠেছে। মহিলা ভাইসচেয়ারম্যান মাহফুজা বেগম পুতুল এ প্রতিবেদকের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন,আমি ইতোমধ্যেও এ স্কুলে পরির্দশনে আসলে শিক্ষকদের পাই নি। এ বিষয়টি আমি দায়িত্বপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষা অফিসার সাজ্জাদ হোসেনকে জানিয়েছিলাম গত ৫জুলাই কিন্তু জানানোর পরেও পরের দিনেই সময়মত প্রধান শিক্ষকসহ কোন শিক্ষকই উপস্থিত হননি স্কুলে। এছাড়াও আমি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার জামাল উদ্দীন চৌধুরীকে বিষয়টি অবগত করার জন্য একাধিবার ফোনে যোগাযোগ করে পাই নি।

তিনি আরো অভিযোগ করে বলেন,এই উপজেলা শিক্ষা অফিসার ঠিকমত অফিস করেন না। এ কারনে তার দপ্তরে গেলেও তাকে পাওয়া যায় না। তিনি উপজেলা শিক্ষা দপ্তরের এমন কাজকর্মের জন্য চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। এ বিষয়ে বক্তব্য নিতে ঐ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ৬ জুলাই দুপুর ২টার দিকে গেলে প্রধান শিক্ষক আশরাফুল ইসলামকে পাওয়া যায় নি।

এ বিষয়ে সহকারী শিক্ষা অফিসার সাজ্জাদ হোসেন বলেন, সকাল নয়টার মধ্যে স্কুলে উপস্থিত হতে হবে এবং স্কুল শেষ হবে বিাকল ৪.১৫ মিনিটে সময় কোন রকমেই বিলম্ব করা যাবে না। বিষয়টি আমাকে ভাইসচেয়ারম্যান অবগত করেছেন আমি তাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ করে জবাব নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য