বিরল (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের বিরল উপজেলার রাণীপুকুর ইউনিয়ন পরিষদের বিষ্ণপুর গ্রামে প্রত্নতত্ব নিদর্শন খনন কাজ গতকাল মঙ্গলবার সকালে পরিদর্শন করলেন জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম।

এ সময় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতœতত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. স্বাধীন সেন, অধ্যাপক সৈয়দ মোঃ কামরুল হাসান, বিরল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এ, বি, এম রওশন কবীর, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ মেজবাউল হোসেন, বিরল থানার পরিদর্শক (ওসি প্রশাসন) আব্দুল মজিদ, রাণীপুকুর ইউপি চেয়ারম্যান ফারুক আযম, জগতপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের উপ-পরিদর্শক মোঃ জিয়াউর রহমান, সাংবাদিক আতিউর রহমান প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতœতত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. স্বাধীন সেন বলেন, স্থানীয় জনসাধরণ ইতিপূর্বে মাটির ঢিপি সংলগ্ন ওই স্থানে বুড়িমাতা ঠাকুরাণী মন্দির নির্মাণ করে নিয়মিত পূজা অর্চনা পরিচালনা করে আসছিল। পূর্ব পশ্চিমে ৮০ মিটার ও উত্তর দক্ষিণে ৫০ মিটার প্রশস্ত এলাকা খনন কাজ চলছে।

প্রাথমিকভাবে অল্প জায়গায় এর খনন কাজ শুরু করা হলেও এখন বিশাল এলাকা জুড়ে এর বিস্তৃতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। খনন কাজের সময় ৩ মাস নির্ধারণ করা হলেও পুরো খনন কাজ শেষ করতে আরও ৩ থেকে ৪ মাস সময় লাগবে বলেও জানান।

সংস্কৃতি মন্ত্রনালয়ের অধীনে জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয় ও বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের অর্থায়নে এবং জাহাঙ্গির নগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতœতত্ব বিভাগের সহযোগিতায় বিরল উপজেলায় আদিকালের একটি স্থাপনা খনন কাজ শুরু হয় এ বছর।

বরেন্দ্র অঞ্চলের ইতিহাসে এ প্রত্নতত্বটির ভূমিকা কি খনন কাজ শেষ হলে বলা যেতে পারে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, এটি আদিকালে নির্মিত হলেও পরবর্তীতে আবারো সংস্কার কাজ করা হয়ে থাকতে পারে।

জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম বলেন, জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ হতে সার্বিক সহযোগিতা খনন কাজে প্রদান করা হচ্ছে। প্রতœতত্বটি সংরক্ষণে প্রশাসন যথাযথ ব্যবস্থা নিবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য